হারানো শক্তি ফিরে পাচ্ছেন তাসকিন

48

কি দারুণভাবেই না অভিষেক হয়েছিলো তাসকিন আহমেদের। গতিময় বলের কারণে সবার নজগ কাড়তে তার বেশিদিন লাগেনি। ২০১৫’র বিশ্বকাপ দিয়ে যে নতুন বাংলাদেশের আবির্ভাব, সেই শক্তিশালী বাংলাদেশের উত্থানের বেশকিছু বর্ণিল মুহূর্তের সাক্ষী ঢাকার এই পেসার। তবে ভাগ্যটা হয়তো বারবার অন্য পথে যেতে চেয়েছিলো। আর সেজন্যই যতটা তাড়াতাড়ি তিনি সুনাম কুঁড়িয়েছিলেন, ততো তাড়াতাড়িই সেটা দুর্নামে পরিণত হয়েছিলো।

কাঁধের ইনজুরির বাঁধায় গতিটা ধীরে ধীরে মন্থর হয়ে পড়ে। সেই সঙ্গে হামলে পড়ে অফফর্ম। সবমিলিয়ে, বেশ বাজে অবস্থার মুখোমুখি হন তাসকিন। গত বছর তো জাতীয় দলে খেলার সুযোগ পেয়েছেন মাত্র দুইবার।

কিন্তু এবারের বিপিএলে নিজের সেই চিরচেনা রূপে আবির্ভুত হয়েছেন তাসকিন। ধীরে ধীরে বাড়ছে তাঁর গতি, মিটছে উইকেট ক্ষুধাও। এবারের বিপিএলে আবারো সেই ১৪০ কিমি/ঘন্টার কাছাকাছি বল করতে পারছেন তিনি। আবার গেল ম্যাচে নিয়েছেন চার চারটি উইকেট।

তাই হতাশাকে দূরে ঠেলে, পুনরায় আশায় বুক বাঁধছেন তাসকিন। শুক্রবার তাই খুঁজে পাওয়া গেছে এক অন্য তাসকিনকে। পুনরায় নিজের ফর্মে ফেরা আশার বাণি দিয়ে তিনি সাংবাদিকদের বলেন,‘২০১৮ সালের দিকে পেস অনেকটা কমে গিয়েছিলো পিঠের ব্যাথার কারণে। তবে এখন প্রায় ১৪০ কি.মি এর কাছাকাছি হচ্ছে আবারও। আশা করি সামনে আবার ছন্দে ফিরে আসতে পারব। এটা সম্পূর্ণ আত্মবিশ্বাসের ব্যাপার। ইনশাল্লাহ যদি সুস্থ থাকি তাহলে সামনে ভালো ইনিংস আসবে।’

আবার ফর্মে ফিরে আসার পিছনের পরিকল্পনার কথাও উল্লেখ করেছেন তিনি, ‘আসলে আমি চেষ্টা করেছিলাম যেরকম উইকেট ছিলো, আমাদের পরিকল্পনা ছিলো উইকেট জোরে আঘাত করে বল করা। উইকেট সোজা বোলিং করা, বৈচিত্র্যময় বোলিং করা। আমি আমার পরিকল্পনা ঠিক মতো কাজে লাগাতে পারায় হয়তো সাফল্য পেয়েছিলাম গত ম্যাচে।’

শেষ পর্যন্ত তাসকিন এই ফর্ম ধরে রাখতে পারলে হয়তো আবারো লাল-সবুুজের সারথি হতে দেখা যাবে তাঁকে। উপরন্তু এতে দেশের ক্রিকেটেরই উন্নতি হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here