ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ের নতুন রেকর্ড গড়লেন মাশরাফি

603

কুমিল্লাকে মাত্র ৬৩ রানে গুটিয়ে দিয়ে ৯ উইকেটের বিশাল জয় পেয়েছে রংপুর রাইডার্স। এমন একপেশে ম্যাচে জয়ের কৃতিত্ব শুধু মাশরাফি একা হয়তো নিতে চাইবেন না। কিন্তু মূল কৃতিত্ব যে তারই তা অস্বীকার করার কোনো সুযোগ নেই। অবিশ্বাস্য বোলিং করেছেন রংপুর রাইডার্সের অধিনায়ক। টি-টোয়েন্টিতে তার ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়েই স্রেফ উড়ে গেছেন তামিম-স্মিথরা। আর দারুণ জয়ের দিন জিতে নিয়েছেন ম্যাচ সেরার পুরস্কার।

মঙ্গলবার (৮ জানুয়ারি) মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টসে জিতে ফিল্ডিং বেছে নেন রংপুরের অধিনায়ক মাশরাফি। বোলিং করতে নেমে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের ইনিংসে বড় আঘাতটা হানেন মাশরাফি নিজেই। ৪ ওভার বল করে মাত্র ১১ রান খরচ করে ৪ উইকেট তুলে নিয়েছেন এই ডানহাতি পেসার। ইকোনমি মাত্র ২.৭৫, ডট বল ১৮টি!

কুমিল্লার প্রথম ৪ ব্যাটসম্যানই মাশরাফির শিকার। এদের কেউই দুই অঙ্ক ছুঁতে পারেননি। দলীয় ১০ রানে কুমিল্লার ওপেনার তামিম ইকবালকে (৪) ফরহাদ রেজার হাতে ক্যাচ দিতে বাধ্য করে উইকেট শিকার শুরু করেন ম্যাশ। এরপর এভিন লুইস, ইমরুল কায়েস ও কুমিল্লার অধিনায়ক স্মিথের (০) উইকেট তুলে নেন তিনি।

মাশরাফির বোলিং তোপে বিধ্বস্ত কুমিল্লার ইনিংসে আঘাত হানেন রংপুরের শফিউল ইসলাম। কোনো রানের দেখা পাওয়ার আগেই মালিককে লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলে প্যাভিলিয়নে ফেরত পাঠান এই ডানহাতি পেসার। পরে সাইফউদ্দিনকেও (৭) আউট করেন শফিউল।

মাঝে ব্যাট হাতে ফের দাঁড়িয়ে যান শহীদ আফ্রিদি। কিন্তু দলীয় ৫৫ রানে অষ্টম উইকেট হিসেবে বিদায় নিতে হয় তাকেও। নাজমুল ইসলামের বলে আউট হওয়ার আগে ১৮ বলে ৩ চার ও ১ ছক্কায় ২৫ রান করেছেন এই সাবেক পাকিস্তানী অধিনায়ক।

বল হাতে মাশরাফি একাই ৪ উইকেট পেয়েছেন ঠিকই, ২০ রানে ৩ উইকেট নিয়ে অন্যতম ভূমিকা রেখেছেন নাজমুল ইসলাম। ২ ওভারে ৮ রান খরচে ২ উইকেট নিয়ে পার্শ্ব চরিত্রে ছিলেন শফিউল ইসলামও। ২ ওভারে ১১ রান খরচে বাকি উইকেট ঝুলিতে পুরেছেন ফরহাদ রেজা।

রংপুর রাইডার্সের একাদশ
মাশরাফি মর্তুজা (অধিনায়ক), রাইলি রুশো, ক্রিস গেইল, মেহেদি মারুফ, মোহাম্মদ মিঠুন (উইকেটরক্ষক), রবি বোপারা, নাজমুল ইসলাম, শফিউল ইসলাম, ফরহাদ রেজা, বেনি হওয়েল, সোহাগ গাজী।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের একাদশ
তামিম ইকবাল, এভিন লুইস, ইমরুল কায়েস, স্টিভ স্মিথ (অধিনায়ক), শোয়েব মালিক, আনামুল হক, শহীদ আফ্রিদি, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, মেহেদি হাসান, মোহাম্মদ শহীদ ও আবু হায়দার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here