খুলনার পতন ঘটিয়ে জাতীয় ক্রিকেট লিগ ২০১৭-১৮ চ্যাম্পিয়ন রাজশাহী

25

বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় অাসর জাতীয় ক্রিকেট লিগ এনসিএলে এই ২০১৭-১৮ মৌসুমের শিরোপা জিতলো রাজশাহী। খুলনার রাজত্বের পতন ঘটিয়ে ৬ বছর পর ৬ষ্ঠ শিরোপা জিতলো বরেন্দ্র অঞ্চলের দলটি।

অাজ জাতীয় ক্রিকেট লিগের শেষ রাউন্ডের ম্যাচে স্বাগতিক রাজশাহী নিজেদের মাঠে বরিশালকে ৬ উইকেটে হারিয়ে এনসিএলের চ্যাম্পিয়ন ট্রফি তুলে নিল।

ঘরের মাঠ রাজশাহীর তেরখাদিয়ার শহিদ কামারুজ্জামান বিভাগীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অাগে ব্যাটিং করতে নামা বরিশালকে ১ম ইনিংসে মাত্র ৯৭ রানে অলঅাউট করে রাজশাহী। মোহর শেখ ৫ উইকেট নেন এবং শফিকুল ইসলাম, ফরহাদ রেজার বোলিং তোপে ১০০ রান করতে পারেনি শাহরিয়ার নাফিস, মোসাদ্দেক, ফজলে রাব্বিদের বরিশাল।

এরপর ১ম ইনিংসে রাজশাহীও ১৬০ রানে অলঅাউট হয় তারপর বরিশাল তাদের ২য় ইনিংসে ৩৪৬ রান করে অলঅাউট হলে রাজশাহীর চ্যাম্পিয়ন হওয়ার জন্য দরকার ছিল ২৮৪ রান।

অাগের দিনই ১৮২/২ রান তুলে অাজ সহজেই জুনায়েদ সিদ্দিকের ১২০ রানের অনবদ্য সেঞ্চুরি ইনিংসের ওপর ভর করে চ্যাম্পিয়ন হয়ে গেল রাজশাহী।

জাতীয় দলের হার্ড হিটার সাব্বির রহমানও এই ম্যাচে নিজ শহর রাজশাহীর পক্ষে ২য় ইনিংসে ৪৯ রান করেন।
নাজমুল হোসেন শান্ত, তাইজুল ইসলাম, শফিউল ইসলাম রাজশাহীর এই তিন গুরুত্বপূর্ণ ক্রিকেটার জিম্বাবুয়ের সিরিজে টেস্ট দলে থাকায় তাদের ছাড়াই শিরোপা জিতলো রাজশাহী।

মোহর শেখ, শফিকুল ইসলাম, সানজামুল ইসলাম, ফরহাদ রেজার দুর্দান্ত বোলিংয়ের পাশাপাশি মিজানুর, জুনায়েদ, সাব্বির, জহুরুল এদের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে জয় তুলে নিলো রাজশাহী।

পুরো লিগে তাইজুল, সানজামুল, ফরহাদ রেজা, শফিউল ইসলাম, শফিকুল ইসলামদের দুর্দান্ত বোলিংয়ের পর শেষদিকে উদীয়মান অারেক বোলার মোহর শেখের অসাধারন বোলিং এনসিএল চ্যাম্পিয়নে অবদান রাখে। ব্যাটিংয়ে নাজমুল শান্ত, মিজানুর রহমান, জুনায়েদ সিদ্দিকী, জহুরুল ইসলাম অমির অসাধারন ব্যাটিং সহ ফরহাদ রেজার অলরাউন্ডিং পারফম্যান্সের ওপর ভর করেই এনসিএল জিতলো রাজশাহী বিভাগ।

সংক্ষিপ্ত স্কোর কার্ড:

বরিশাল ৯৭/১০ ও ৩৪৬/১০

রাজশাহী ১৬০/১০ ও ২৮৬/৪
(সাব্বির ৪৯, জুনায়েদ ১২০*, জহুরুল ৬৪)

ফলাফল : রাজশাহী ৬ উইকেটে জয়ী

ম্যান অব দ্যা ম্যাচ : জুনায়েদ সিদ্দিকী

রাজশাহী টিম:
মিজানুর রহমান, নাজমুল হোসেন শান্ত, জুনায়েদ সিদ্দিকী, জহুরুল ইসলাম অমি, মাইশুকুর রহমান, সাব্বির রহমান রুম্মান, ফরহাদ রেজা, ফরহাদ হোসেন, সাব্বির হোসেন, শফিকুল ইসলাম, মোহর শেখ, তাইজুল ইসলাম, শফিউল ইসলাম, সানজামুল ইসলাম।