একনজরে ‘বিপিএল রোল অব অনার’

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ বিপিএল এর চলমান বিশেষ আসর প্রায় সমাপ্তির পথে। আগামীকাল এ আসরের চ্যাম্পিয়ন নির্ধারনী ফাইনাল ম্যাচ দিয়ে শেষ হবে প্রায় দেড় মাসেরও কাছাকাছি সময়ের জমজমাট ক্রিকেটীয় লড়াই। কার হাতে উঠবে বিপিএল বিশেষ আসরের ট্রফি। কে হবেন ইমরুল কায়েস এর পরে বিপিএল চ্যাম্পিয়ন। টিম স্পোর্টসজোনের প্রতিবেদনে একনজরে দেখেনিন বিপিএলের শুরু থেকে কারা ছিলেন চ্যাম্পিয়ন – রানার্সআপ।

২০১২ সালে শুরু হয় বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল)। প্রথম আসরে মাশরাফি বিন মুর্তজার নেতৃত্বে চ্যাম্পিয়ন হয় ঢাকা গ্লাডিয়েটরস। রানার্স আপ হয় বরিশাল বার্নার্স।

এরপর ২০১৩ সালেও মাশরাফি বিন মুর্তজার নেতৃত্বে চ্যাম্পিয়ন হয় ঢাকা গ্লাডিয়েটরস। রানার্স আপ হয় চিটাগং কিংস। প্রথম দুই মৌসুমে যথারীতি মাঠে গড়ালেও অনিবার্য কারণবশত কারনে পরের আসর(২০১৪ আসর) মাঠে গড়ায়নি।

এরপর বিপিএলের তৃতীয় আসর মাঠে গড়ায় ২০১৫ সালে। সেবার বিপিএলে প্রথমবারের মতো অংশ নিয়েই সবাইকে চমকে দিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। বরিশাল বুলসকে হারিয়ে প্রথম অংশ গ্রহনেই কুমিল্লা কে শিরোপা এনে দেন প্রথম দুই আসরে ঢাকাকে শিরোপা জেতানো অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা

এরপর ২০১৬ সালে ভিন্ন অধিনায়ক এর হাতে উঠলো বিপিএল শিরোপা। তৃতীয়বারের মতো চ্যাম্পিয়ন ঢাকা হলেও সেবারের ঢাকার নেতৃত্বে ছিলেন বিশ্ব সেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান । সে মৌসুমে রানার্স আপ হওয়া ড্যারেন সামির নেতৃত্বাদিন রাজশাহীর কিংসকে হারানোর মধ্যে দিয়ে প্রথমবারের মতো বিপিএলে শিরোপার স্বাদ পান সাকিব আল হাসান।

এরপর ২০১৭-১৮ আসরে চ্যাম্পিয়ন হয় রংপুর রাইডারস। রানার্স আপ হয় ঢাকা ডায়নামাইটস। ক্রিস গেইল এর দানবীয় ইনিংসে ভর করে সাকিবের নেতৃত্বাদিন ঢাকা ডায়নামাইটস কে রানার্স আপ এর স্বাদ দিয়ে রংপুর কে চ্যাম্পিয়ন করার মাধ্যমে বিপিএল এর ইতিহাসে চতুর্থ বারের মতো চ্যাম্পিয়ন হওয়ার রেকর্ড গড়েন মাশরাফি।

এরপর ২০১৮ – ১৯ মৌসুমে দ্বিতীয় বারের মতো চ্যাম্পিয়ন হয় কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। রানার্স আপ হয় ঢাকা ডায়নামাইটস। দেশসেরা ওপেনার তামিম ইকবাল এর অনবদ্য সেঞ্চুরিতে ঢাকাকে হারিয়ে প্রথম বারের মতো বিপিএল শিরোপা জিতেন ইমরুল কায়েস।

এরপর ২০১৯ -২০ মৌসুম চলমান আসর কে হবে বিপিএলের নতুন চ্যাম্পিয়ন। কে হাসবে শেষ হাঁসি। কার হাতে উঠবে বিপিএল বিশেষ আসরের ট্রফি। সেটা দেখার অপেক্ষায় বিশ্ব।