ঋণ নিয়ে খেলা দেখে এখন ঋণ পরিশোধে উবার চালাচ্ছেন ‘শোয়েব আলী’

বাংলাদেশ ক্রিকেটের আইকনিক ফ্যান শোয়েব আলী বুখারি। এক কথায় বলা বাংলাদেশ দল যেখানে শোয়েব আলী সেখানে। ২০১৯ বিশ্বকাপে, শ্রীলঙ্কা ও সদ্য শেষ হওয়া ভারতে বাংলাদেশের দলকে সাপোর্ট করতে বিদেশ পাড়ি দিয়েছে তিনি।

তবে সবগুলো ম্যাচ দেখেন নিজের অর্থায়নে। দেশকে ভালোবাসেন, দেশের ক্রিকেটকে ভালোবাসেন বলে তিনি সবকিছু বিসর্জন দিয়ে বাংলাদেশ দলের সাথে দেশ বিদেশে ঘুরেন ওয়ার্কশপে কাজ করা শোয়েব আলী। সদ্য শেষ হওয়া ভারত সফরে যেখানে ক্রিকেটাররা আকাশ পথে উড়াল দেন, সেখানে তিনি দীর্ঘ সময় ট্রেনে চড়ে পাড়ি দেন ভারতে। আজ সেই সাপোর্টার ঋণ পরিশোধে চালাচ্ছেন ‘উবার’।

বিডিক্রিকটাইমের এক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, মোটরগাড়ি ঠিক করার একটি ওয়ার্কশপ ছিল তার। খেলা দেখার পাগলামিতে সেটি বন্ধ করতে হয়েছে। বিশ্বকাপ, শ্রীলঙ্কা আর ভারত সফরের পর মাথায় ঋণের বোঝা। বাধ্য হয়ে শোয়েব এখন উবার চালকের ভূমিকায়। দেশের একজন আইকনিক ক্রিকেট সমর্থককে রাইড শেয়ারিং সার্ভিস উবারের কার চালাতে দেখা মোটেও অস্বাভাবিক নয়। তবে অস্বাভাবিক ঠেকল তার জীবনচিত্র। খেলা দেখার উন্মাদনায় অনেক টাকা ঋণ করেছেন। এবার তাই বিপিএলের মত বড় টুর্নামেন্ট ফেলে অর্থের পেছনে ছুটতে হচ্ছে।গত বিপিএলেও নিজে গ্যালারিতে ছিলেন, আর এবার তিনি অন্য সমর্থকদের ট্রিপে করে নামিয়ে আসেন মিরপুর স্টেডিয়ামের সামনে।

শোয়েবের অবশ্য আক্ষেপ নেই তিনি জানান;“গাড়ি তো কেউ শখ করে চালায় না। পেটের জন্য চালায়। সব রাস্তা বন্ধ হয়ে গেলে আসলে আল্লাহ একটা রাস্তা খুলে দেন। খেলা দেখতে গেলে ওয়ার্কশপের কাস্টমাররা ফিরে যেত, পরে আর আসতো না। খেলা দেখতে গিয়ে আজকে ওয়ার্কশপও নেই, অবস্থাও অতটা ভালো নেই।”

তিনি আরো বলেন;“খেলা দেখতে গিয়ে অনেক টাকার ঋণী হয়েছি। স্পন্সর পাওয়া যায় না। বিশ্বকাপ দেখতে ইংল্যান্ড যাওয়ার সময় একটা প্রতিষ্ঠান স্পন্সর হল, কিন্তু সেই টাকা এখনো পাইনি। প্রতি সপ্তাহে ওদের কাছে যাই। মিডিয়ায় বলতে গেলে হয়ত যা পাওয়ার কথা সেটাও পাব না, বা তারা রাগ করবে।”

সূত্রঃ বিডিক্রিকটাইম