লাৎসিওতে ডুবলো জুভেন্টাস

এবারের মৌসুমের লীগ ম্যাচে প্রথম হারের স্বাদ পেলো জুভেন্টাস। ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর গোলে শুরুতে এগিয়ে গেলেও ম্যাচশেষে ৩-১ গোলের হার নিয়ে মাঠ ছাড়ে তুরিনের বুড়িরা।

জিতলেই ইন্টার মিলানকে টপকে দখল করা যাবে লীগ টেবিলের শীর্ষস্থান। এমন সমীকরণের ম্যাচে ২৫তম মিনিটে রোনালদোর গোলে এগিয়ে যায় জুভেন্টাস। উরুগুয়ের মিডফিল্ডার রদ্রিগো বেন্তানকুরের দারুণ পাস ছোট ডি-বক্সে পেয়ে অনায়াসে জালে পাঠান এই পর্তুগীজ তারকা।

পিছিয়ে পড়ে ধীরে ধীরে নিজেদের গুছিয়ে নিয়ে পাল্টা আক্রমণ করতে থাকে লাৎসিও। সাফল্যের দেখা মেলে বিরতির ঠিক আগে। প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ের প্রথম মিনিটে লুইস আলবের্তোর ক্রসে হেডে দলকে সমতায় ফেরান ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার ফেলিপে।

৬৯তম মিনিটে বড় ধাক্কা খায় জুভেন্টাস। প্রতিপক্ষের মিডফিল্ডার মানুয়েল লাজ্জারিকে বিপজ্জনক ফাউল করে সরাসরি লাল কার্ড দেখেন হুয়ান কুয়াদরাদো।

১০ জনে নেমে যাওয়ার ধাক্কা সামলে ওঠার আগেই দ্বিতীয় গোল খেয়ে বসে টানা আটবারের চ্যাম্পিয়নরা। ৭৪তম মিনিটে বাঁ দিক থেকে সতীর্থের লম্বা উঁচু করে বাড়ানো বল ডান পায়ে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে বাঁ পায়ের শটে ঠিকানা খুঁজে নেন সার্বিয়ার মিডফিল্ডার সাভিচ।

দুই মিনিট পর চ্যাম্পিয়নদের জন্য হতে পারতো আর বড় বিপদ। আর্জেন্টাইন মিডফিল্ডার হোয়াকিন কোররেয়াকে গোলরক্ষক ভয়চেখ স্ট্যাসনি ফেলে দিলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। তবে চিরো ইম্মোবিলের স্পট কিক ঠেকিয়ে ব্যবধান বাড়তে দেননি পোলিশ গোলরক্ষক।

ম্যাচে ফিরতে মরিয়া জুভেন্টাস ৭৯তম মিনিট ডিবালাকে বসিয়ে তারই স্বদেশি হিগুয়াইনকে নামায়। তবে তাতে কাজের কাজ কিছু হয়নি।

উল্টো যোগ করা সময়ের পঞ্চম মিনিটে তৃতীয় গোল হজম করে তুরিনের বুড়িরা। লাৎসিওর প্রথম প্রচেষ্টা গোলরক্ষক ঠেকানোর পর জোরালো ভলিতে স্কোরলাইন ৩-১ করেন একুয়েডরের ফরোয়ার্ড কাইসেদো।

১৫ ম্যাচে ১১ জয় ও তিন ড্রয়ে ৩৬ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে আছে ইউভেন্তুস। ২ পয়েন্ট বেশি নিয়ে শীর্ষে আছে ইন্টার মিলান। আর ৩৩ পয়েন্ট নিয়ে তিন নম্বরে আছে লাৎসিও।