মেসি ম্যাজিকে ডর্টমুন্ডকে উড়িয়ে দিয়ে দ্বিতীয় রাউন্ডে বার্সেলোনা

উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগের ম্যাচে বড় জয় পেয়েছে স্প্যানিশ জায়ান্ট বার্সেলোনা। ঘরের মাঠে বরুসিয়া ডর্টমুন্ডকে ৩-১ গোলের ব্যবধানে হারিয়েছে কাতালানরা।

ম্যাচ শুরুতেই গোল খেতে বসেছিল বার্সেলোনা। দ্বিতীয় মিনিটে নিকো শুল্জেরর কাছ থেকে নেওয়া শট রুখে দেন বার্সা গোলরক্ষক মার্ক-আন্ড্রে টের স্টেগান। ফিরতি বল পেয়ে লক্ষ্যভ্রষ্ট শট নেন জার্মান মিডফিল্ডার।

বরাবরের মতো এ ম্যাচের শুরু থেকেও অধিকাংশ সময় বল দখলে রেখে খেলতে থাকে বার্সেলোনা। ২৯তম মিনিটে এগিয়ে যায় তারা। ডি-বক্সের মুখে বল পেয়ে নিজে শট না নিয়ে সুয়ারেজকে বাড়ান মেসি। ঠাণ্ডা মাথায় নিচু শটে গোলরক্ষকের দুই পায়ের ফাঁক দিয়ে ঠিকানা খুঁজে নেন উরুগুয়ের স্ট্রাইকার।

চার মিনিট পর আবারও মেসি-সুয়ারেজের দারুণ বোঝাপড়াতেই দ্বিতীয় গোলের দেখা পায় লা লিগা চ্যাম্পিয়নরা। এবারের গোলদাতা মেসি। সুয়ারেজকে বল বাড়িয়ে দ্রুত বাঁ দিক দিয়ে ডি-বক্সে ঢুকে পড়েন বার্সেলোনা অধিনায়ক এবং সতীর্থের ফিরতি পাস পেয়ে কোনাকুনি শটে আসরে নিজের দ্বিতীয় গোলটি করেন এবারের ফিফা বর্ষসেরা ফুটবলার।

৬৭তম মিনিটে স্কোরশিটে নাম লেখান গ্রিজমান। একজনকে কাটিয়ে মেসির ডি-বক্সে বাড়ানো বল প্রথম ছোঁয়ায় কোনাকুনি শটে ঠিকানায় পাঠান ফরাসি এই ফরোয়ার্ড। বার্সেলোনার জার্সিতে ইউরোপ সেরার মৌসুমে এটা তার প্রথম গোল।

দ্বিতীয়ার্ধের অধিকাংশ সময় বল দখলে রেখে আক্রমণে ওঠার চেষ্টায় ছিল জার্মানির ক্লাবটি। কিন্তু তাদের আক্রমগুলো বারবার ভেস্তে যাচ্ছিল।

৭৭তম মিনিটে অবশেষে গোলের দেখা পায় তারা। প্রায় ১৭ গজ দূর থেকে জোরালো শটে কাছের পোস্ট দিয়ে বল লক্ষ্যে পাঠান ইংলিশ মিডফিল্ডার জেডন স্যানচো।

ম্যাচের শেষটা নাটকীয় রূপ নিতে পারতো। কিন্তু ৮৭তম মিনিটে স্যানচোর আরেকটি জোরালো শট টের স্টেগেনের হাতে লেগে ক্রসবারে লাগলে বরুসিয়ার ম্যাচে ফেরার আশা শেষ হয়ে যায়।

এই জয়ে নিজেদের গ্ৰুপের শীর্ষে থেকে পরের রাউন্ডে যাওয়া নিশ্চিত হলো বার্সেলোনার। ৫ ম্যাচে ১১ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে তারা। সামনে ম্যাচে ইন্টার এবং ডর্টমুন্ড দুই দলেরই সংগ্রহ সমান ৭ পয়েন্ট।