এবাদত-নাসুমের বোলিং তান্ডবে ইনিংস ব্যবধানে হারলো আশরাফুলের বরিশাল

কক্সবাজারে জাতীয় লিগের চতুর্থ রাউন্ডে বরিশাল বিভাগের মুখোমুখি সিলেট বিভাগ। টস জিতে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নেয় বরিশাল। এবাদত-নাসুমের বোলিং তান্ডবে ইনিংস ব্যবধানে জয় পায় সিলেট।

ভারত টেস্টে ডাক পাওয়া এবাদতের বোলিং তান্ডবে প্রথম ওভারে বিপাকে পরে আশরাফুলের দল বরিশাল। প্রথম ওভারে নাফিস ও ফজলে রাব্বিকে ফিরায়ে দেন এবাদত হোসেন। তার কিছু সময় পরে আবারো এবাদতের আঘাত। দলের ২৫ রানের মাথায় রাফসান মাহমুদকে প্যাভিলিয়নের পথ দেখান তরুণ এই পেস বোলার।

অন্য দিকে একপাশ থেকে ধরে খেলার চেষ্টা করলেও ব্যর্থ হোন আগের ম্যাচের শতক হাঁকানো মোহাম্মদ আশরাফুল। ২০ রানের মাথায় এনামুল জুনিয়রের বলে ফিরেন তিনি।
পরবর্তীতে এবাদতের বলে ২৫ রান করে ফিরেন সালমান হোসেন। ৩ চারে নুরুজ্জামান করেন ৪০ রান। শামসুল ইসলামকে শিকারে এবাদত অর্জন করপন ৫ উইকেট শিকারের মাইফলক। যার ফলে ১৬২ রানে থামতে হয় বরিশালকে।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে সিলেটের হয়ে ইমতিয়াজের দারুণ শুরু। তবে ১ ছক্কা ও ৫ চারে ৪৮ করে রাফসানের বলে ফিরতে হয় তাকে। পরবর্তীতে শাহনাজ ৮ চারে ৭৩, জাকের ৬ চারে এবং জাকের আলীর ৪ চারে ৩৫ রানের উপর ভর ৩২২ রান করতে সক্ষম হয় সিলেট বিভাগ। বল হাতে মনিরের ৪ উইকেট।

১৬০ রান পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নামে বরিশাল। রাফসান ওপেনিং করতে নেমে (০) রানে আবু জায়েদ বলে ফিরেন। সেই সাথে আশরাফুলও ওপেনিং করতে নেমে ২ রানের মাথায় এবাদতের বলে ফিরলে বিপাকে পরে বরিশাল।

কিন্তু নিয়ম বিরতিতে উইকেট পরতে থাকায় ইনিংস ব্যবধানে হারে বরিশাল। দলের হয়ে সর্বোচ্চ রান সোহাগ গাজীর ৩৭, নাফিসের ৩২ ও নুরুজ্জামান করেন ২৫ রান। যার ফলে ইনিংস ও ৩২ রানের ব্যবধানে হারে বরিশাল বিভাগ। বল হাতে দ্যুতি ছড়িয়েছেন নাছিম আহমেদ মাত্র ৫ রান দিয়ে উইকেট নেন ৪টি এবং তার সাথে এবাদত নেন ৩ উইকেট।

সংক্ষিপ্ত স্কোর→

বরিশাল (১ম ইনিংস): ১৬২/১০(৫৭.১)
নুরুজ্জামান ৪০,সালমান ২৫
এবাদত ৫/৩৬,নাছুম ৩/৫৭

সিলেট (১ম ইনিংস): ৩২২/১০(১১৩.১)
শাহনাজ ৭৩,জাকির হাসান ৫০
মনির ৩/৬৯

বরিশাল (২য় ইনিংস): ১২৮/১০(৪৫.১)
সোহাগ গাজী ৩৭,নাফিস ৩২
নাসুম ৪/৫,এবাদত ৩/২৮

(ফলাফলঃ বরিশাল বিভাগের বিপক্ষে ইনিংস ও ৩২ রানে জয় পায় সিলেট বিভাগ)