সাকিবের এমন খামখেয়ালি আমাকে বিস্মিত করেছেঃ হাবিবুল বাশার

ম্যাচ ফিক্সিং এর প্রস্তাব পেয়েও নিজের মত করে গোপন করায় বিশ্ব সেরা অলরাউন্ডার, বাংলাদেশের টেস্ট ও টি টোয়েন্টি অধিনায়ক সাকিব আল হাসান কে এক বছরের জন্য নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে আইসিসি। ম্যাচ ফিক্সিং এর প্রস্তাব গোপনের কারনে সাকিবের নিষেধাজ্ঞা যথারীতি হতাশ করেছে সবাইকে৷ সেই তালিকায় এবার বাংলাদেশ দলের সাবেক অধিনায়ক ও বর্তমান নির্বাচক হাবিবুল বাশার ও বিস্ময় প্রকাশ করেন।

২০১৮ সালের ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ে ও শ্রীলঙ্কার সাথে ত্রিদেশীয় সিরিজে এবং একই বছরের আইপিএলে সাকিবের দল সানরাইজ হায়দ্রাবাদ বনাম কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের ম্যাচে, দীপক আগাওয়াল নামের ভারতের তালিকাভুক্ত এক জুয়াড়ির কাছ থেকে ম্যাচ ফিক্সিং এর প্রস্তাব পান সাকিব আল হাসান।

ম্যাচ ফিক্সিং এর এই প্রস্তাব আইসিসির অপরাধ বিভাগ (আকসু) কে না জানানোয় সাকিব কে দুই বছরের জন্য নিষিদ্ধ করে ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রণ সংস্থা আইসিসি। পরে তাদের তদন্ত কাজে যথাযথ সহায়তা করার কারনে এক বছরের শাস্তি কমিয়ে এক বছরের জন্য সাকিব কে নিষেধাজ্ঞাদে আইসিসি।

সাকিবের ক্রিকেট থেকে নির্বাসনের এই খবরে নিস্তব্ধতা বিরাজ করছে সকল ক্রীড়া প্রেমিদের মাঝে। অন্য সবার মতোই বিস্মিত দেশের ক্রিকেটের অন্যতম সফল অধিনায়ক ও বর্তমানে দলের নির্বাচক হাবিবুল বুঝতেই পারছেন না, সাকিবের মতো পরিণত মস্তিষ্কের একজন ক্রিকেটার কীভাবে এই খামখেয়ালিপনা করতে পারেন। তিন-তিন বার দীপক আগারওয়াল নামের এক জুয়াড়ির কাছে প্রস্তাব পেয়েও সাকিব কি কারণে আইসিসিকে জানাননি, ভেবেই কূল পাচ্ছেন না হাবিবুল।

হাবিবুল বাশার বলেন- অবাক হলেও সাকিব যে ম্যাচ পাতানোর দায়ে অভিযুক্ত হননি সেটাই স্বস্তির এই নির্বাচকের, ‘আমি বেশ বড়সড় একটা ধাক্কা খেয়েছি। আমি এটা ভেবেই নিজেকে সান্ত্বনা দিচ্ছি যে আমি সাকিবকে বহু বছর ধরে চিনি। আমি জানি ও কখনো কোনো ধরনের দুর্নীতির সঙ্গে নিজেকে জড়াবে না। আইসিসি যে ওর নামে ম্যাচ পাতানোর অভিযোগ তোলেনি সেটা আমার কাছে স্বস্তির বিষয়। কিন্তু অন্য সবার মতো আমিও বুঝতে পারছি না, ওর মতো পরিণত একজন খেলোয়াড় কেন আইসিসিকে এই ব্যাপারে জানাল না।

হাবিবুল বাশার আরও বলেন -এক বছর পর সাকিবের ফিরে আসার কাজটা একদম সহজ হবে বলে মনে করছেন না সাবেক এই অধিনায়ক, সাকিব এক বছরের জন্য সব ধরণের ক্রিকেটের বাইরে থাকবে। ওর জন্য মানসিকভাবে এটা অনেক বড় একটা ধাক্কা। এক বছর পর আবারও দলে আসা ও আগের ফর্মে ফেরার কাজটা ওর জন্য সহজ হবে না। তবে খেলোয়াড়টি সাকিব বলেই আমি আশাবাদী কাজটা কঠিন হলেও অসম্ভব নয়। আর ভুলে যাবেন না, আমরা যে খেলোয়াড়টিকে নিয়ে কথা বলছি তাঁর নাম সাকিব আল হাসান। ওর সামর্থ্য ও প্রতিভার ওপর আমার বিশ্বাস আছে। এমন অনেক হয়েছে, যে ও চোটে পড়ে তিন থেকে ছয় মাসের জন্য মাঠের বাইরে চলে গিয়েছে। সুস্থ হয়ে আবারও একই ভাবে ফিরে এসেছে ও। সে একজন অভিজ্ঞ খেলোয়াড়, এটা মনে করার একটুও কারণ নেই যে ও ভালোভাবে ফিরে আসবে না।