এরপরও কেন দলে লিটন-সাব্বির?

ত্রিদেশীয় সিরিজের প্রথম দুই ম্যাচের পর পরবর্তী দুই ম্যাচের দলে জায়গা হয়নি ওপেনার সৌম্য সরকারের। তবে ব্যাটিং ব্যর্থতার পরও টিকে গেছেন ওপেনার লিটন দাস ও মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান সাব্বির রহমান।

প্রতিভা তকমা নিয়ে তার আবির্ভাব জাতীয় দলে। কিন্তু এখন দলের বোঝা হবার অবস্থা সাব্বির রহমানের। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলছেন প্রায় সাড়ে ৫ বছর। জাতীয় দলের হয়ে ১২০টি ম্যাচ খেলেও হতে পারেননি ধারাবাহিক। এখনো দল আস্থা রাখতে পারে না তার ওপর।

যতটা না মাঠের পারফম্যান্স দিয়ে তিনি আলোচনায় আসেন, তার চেয়ে বেশি শিরোনাম হয়েছেন মাঠের বাইরের কাণ্ডে। কালে ভদ্রে রান পেলেও তা দলের জয়ে অবদান রেখেছে খুব কমই।

তবে টি-টোয়েন্টি আসলে তাকে নিয়ে আবারো সবাই আশা দেখে। তাকে যে বলা হয় টি-২০ স্পেশালিস্ট। কিন্তু এই ফরম্যাটেও ঠিক কতটা প্রত্যাশা পূরণ করতে পেরেছেন?

সাব্বিরের পরিসংখ্যান দেখলে হতাশ হবেন যে কেউই। ২০১৭ থেকে এখন পর্যন্ত খেলা ১৭ ম্যাচে তার রান ৩৪১। ফিফটি আছে মাত্র একটি। স্ট্রাইক রেট একশো ২০, গড়ও ২০। ঠিক এই সময়ে সাব্বিরের সমান বা কম ম্যাচ খেলে রান দ্বিগুণ রান করেছে এমন ক্রিকেটারের সংখ্যাও কম নয়।

আরেক ব্যাটসম্যান লিটন দাসেরও একই অবস্থা। ২০১৭’র জানুয়ারি থেকে সাব্বিরের সমান ১৭ ম্যাচ খেলেছেন লিটন। সাব্বিরের কাছাকাছি গড়ে রান করেছেন ৩৬১। তবে তার স্ট্রাইক রেট একটু বেশি।

তবে এদের দলে থাকার কারনটাও বেশ স্বাভাবিক। টি-টোয়েন্টিতে এদের একটু আলাদাভাবেই দেখা হয়ে থাকে। লিটনকে সবসময় দেশের অন্যান্য ব্যাটসম্যানদের তুলনায় তার ক্লিন শর্ট, ফ্রি মাইন্ডে খেলার জন্য সামনে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের কথা মাথায় রেখে তাকে দলে সুযোগ দিচ্ছে বিসিবি। একি কারনে দলে রয়েছেন সাব্বিরও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here