১৭ কোটি টাকা লোপাট করেছে বাফুফে

৯০ এর দশকে বাংলাদেশে ফুটবলের যে গৌরব, ঐতিহ্য ছিল তা হারিয়ে গেছে। ধুকতে ধুকতে আবারও যখন নতুন করে পথ চলতে চাইছে তখনই বোমা ফাটালেন বাফুফের একজন সহ সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ মহি। তিনি জানালেন গত ৩ অর্থবছরে প্রায় ১৭ কোটি টাকার অনিয়ম হয়েছে বাফুফে-তে।

বাফুফের নিয়ম অনুযায়ী প্রতি বছর এজিএম বা বার্ষিক সাধারণ সভার মাধ্যমে অর্থনৈতিক প্রতিবেদন সর্বসম্মতিক্রমে তা অনুমোদন দেয়া হয়। যা পরবর্তীতে পাঠানো হয় ফিফা এবং এএফসি বরাবর। কিন্তু, এজিএম ছাড়াই গত তিন বছরে কিভাবে এই প্রতিবেদন অনুমোদন পেল তা জানতে চেয়ে বাফুফে সভাপতি সালাউদ্দিন এর কাছে চিঠি পাঠিয়েছেন মহি। তিনি বলেন,
“আমার ব্যক্তিগত পর্যবেক্ষণে এই অনিয়ম পেয়েছি। এই ১৭ কোটি দুর্নীতির পেছনে যে দায়ী সেটা নিয়ে তদন্ত করতে হবে। তাকে শাস্তির আওতায় আনতে হবে। আমি নিজেও যদি কোন অনিয়ম করে থাকি তাহলে আমাকেও এর আওতায় নেয়া হোক।”

মহির তদন্ত অনুযায়ী ২০১৬ সালে ৮ কোটি ৬১ লক্ষ, ২০১৭ সালে ৫ কোটি ৬৫ লক্ষ ও ২০১৮ সালে ২ কোটি ৭৬ লক্ষ টাকাসহ সর্বমোট ১৭ কোটি টাকার দুর্নীতি হয়েছে বাফুফেতে। এর প্রতিবাদ স্বরুপ, সহসভাপতির পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছেন মহি।

এই অভিযোগ অস্বীকার করে অর্থ সম্পাদক সালাম মুর্শেদী বলেন, ‘গত সাড়ে তিন বছরের যে অডিট হয়েছে, ফিফা ও এএফসিতে যা পাঠানো হয়েছে সঠিক উপায়েও হয়েছে। অভ্যন্তরীণ ও বহির্ভাগে যে অডিট হয়েছে সেটা নিয়ে আমি সন্তুষ্ট। হয়তো সময়মত আমরা এজিএম করতে পারিনি। আমার কলিগের প্রশ্ন হয়তো সেটি হতে পারে।’

ফুটবলের দৈন্যদশা কাটানোর পরিবর্তে এই দুর্নীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত সকলের বিপক্ষে দৃঢ অবস্থান নেবে বাফুফে এমনটাই তার চিঠিতে কাজী সালাউদ্দিন কে জানিয়েছেন মহি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here