রশিদ ঘূর্ণিতে আফগানদের ঐতিহাসিক টেস্ট জয়

চট্টগ্রামে একমাত্র টেস্টের শেষদিনে বাংলাদেশকে ২২৪ রানে উড়িয়ে দিল আফগানিস্তান। ফলে ইতিহাসের মাত্র দ্বিতীয় দল হিসেবে নিজেদের প্রথম তিন টেস্টে দুই জয় পেল আফগানিস্তান।

আরো পড়ুন:-এমন লজ্জার হারের পর যা বললেন সাকিব

৬ উইকেটে ১৩৬ রান নিয়ে চতুর্থ দিনের খেলা শেষ করেছিল বাংলাদেশ। তাই শেষদিনে আফগানদের জয়টা অনুনেয়ই ছিল। কিন্তু বাংলাদেশের জন্য আশীর্বাদ হয়ে এসেছিল বৃষ্টি। নির্ধারিত সময়ের সাড়ে তিনঘণ্টা পর দুপুর ১ টায় খেলা শুরু হলেও মাত্র ১৩ বল খেলা হওয়ার পরেই আবারো চট্টগ্রামের আকাশে হানা দেয় বৃষ্টি।

এরপর আরো প্রায় তিনঘণ্টা পর বিকাল ৪ঃ২০ মিনিটে আবারো খেলা শুরু করা হলে ম্যাচ বাচাতে ১৮.৩ ওভার ব্যাট করতে হতো টাইগারদের। কিন্তু সবাইকে অবাক করে প্রথম বলেই জহির খানের বলে কাট করতে যেয়ে কিপারের কাছে ধরা দেন সাকিব আল হাসান। ফেরার আগে ৪৪ রান করেন তিনি। এরপর সৌম্যের সাথে মিরাজ ম্যাচ বাচানোর চেষ্টা করলেও রশিদের এক গুগলিতে লেগবিফোর হিয়ে ফিরে যান তিনি।

এরপর রশিদের পরের ওভারেই তাইজুলকে ভুল আউট দিয়ে বাংলাদেশের পরাজয় আরো কাছে এনে দেন আম্পায়ার পল উইলসন। শেষ উইকেটে নাঈম হাসানকে নিয়ে সৌম্য চেষ্টা করলেও ম্যাচ শেষ হওয়ার ২০ বল বাকি থাকতে শর্ট লেগে ক্যাচ দিলে দুর্দান্ত এক জয় তুলে নেয় আফগানিস্তান। বাংলাদেশ অল আউট হয় ১৭৩ রানে।

জাহির খানের এই উল্লাসই বলে দিচ্ছে টাইগারদের সব শেষ৷ ছবি : সংগৃহীত।

আরো পড়ুন:-ইতিহাসের দ্বিতীয় দল হিসেবে অনন্য রেকর্ড গড়লো আফগানিস্তান

আফগান কাপ্তান রশিদ খান একাই নেন ৬ উইকেট। এছাড়া প্রথম ইনিংসেও ৫ উইকেট নেয়ার ফলে এই ম্যাচে ১১ উইকেট ও ব্যাট হাতে প্রথম ইনিংসে ফিফটি হাকানোয় ইতিহাসের প্রথম অধিনায়ক হিসেবে নিজের প্রথম ম্যাচেই এক টেস্টে ১০ উইকেট ও ব্যাট হাতে ফিফটি হাকানোর রেকর্ড গড়লেন তিনি।

আরো পড়ুন:-হেরেও প্রথম দেশ হিসেবে অনন্য রেকর্ড গড়ল বাংলাদেশ

সংক্ষিপ্ত স্কোর :

আফগানিস্তান(১ম ইনিংস) : ৩৪২/১০, রহমত শাহ- ১০২, আসগর- ৯২।
তাইজুল- ৪/১১৬

বাংলাদেশ(১ম ইনিংস): ২০৫/১০, মমিনুল- ৫২, মোসাদ্দেক- ৪৮।
রশিদ- ৫/৫৫

আফগানিস্তান(২য় ইনিংস) : ২৬০/১০, ইব্রাহিম- ৮৭,
সাকিব- ৩/৫৮

বাংলাদেশ(২য় ইনিংস) : ১৭৩/১০, রশিদ- ৬/৪৯।