বিরল দৃশ্যের অবতারণা করলেন ডমিঙ্গো

ছবি : বিসিবি।

বিগত এক বছরে বাংলাদেশের প্রতিটি হারের পিছনে রয়েছে মিস ফিল্ডিংয়ের বিরূপ প্রভাব । সাম্প্রতিককালে বিষয়টি আরো বেশি প্রকট রূপ ধারণ করেছে । বারবার ফিল্ডিং ব্যর্থতার জন্য প্রতিপক্ষকে জয় উপহার দিয়ে ফিরছেন টাইগাররা। ফিল্ডিং কোচ রায়ান কুকের কপালেও এটি নিয়ে চিন্তার ভাঁজ পড়েছে । নবনিযুক্ত কোচ রাসেল ডমিঙ্গোও তাই রোববার লম্বা সময় ধরে কাজ করলেন এই ফিল্ডিংকে ঘিরেই ৷

গতকাল দুপুর সাড়ে বারোটা থেকে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত প্রস্তুতির মূল বিষয়বস্তু ছিল ফিল্ডিং। প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো শিষ্যদের ছয় ঘন্টার ক্যাম্পিংয়ের প্রায় অর্ধেক সময়েই ব্যস্ত রেখেছেন ফিল্ডিংয়ের মাঝে। প্রধান কোচ হিসেবে তিনি অবশ্য যে কোনো শাখা নিয়েই কাজ করতে পারেন। তবে প্রধান কোচদের সচরাচর এতো লম্বা সময় ধরে ফিল্ডিং প্রেকটিস করাতে দেখা যায় না। ডমিঙ্গো কাল সেই বিরল চিত্রটিই উপস্থাপন করেন।

বিগত এক বছরে বাংলাদেশের প্রতিটি হারের পিছনে রয়েছে মিস ফিল্ডিংয়ের বিরূপ প্রভাব । সাম্প্রতিককালে বিষয়টি আরো বেশি প্রকট রূপ ধারণ করেছে । ফিল্ডিং কোচ রায়ান কুকের কপালেও এটি নিয়ে চিন্তার ভাঁজ পড়েছে । নবনিযুক্ত কোচ রাসেল ডমিঙ্গোও তাই রোববার লম্বা সময় ধরে কাজ করলেন এই ফিল্ডিংকে ঘিরেই।

প্রথমে মিরপুরের সেন্টার উইকেটের ঠিক পেছনে মুশফিকুর রহিম, ইমরুল কায়েস, সৌম্য সরকার, লিটন দাস, সাদমান ইসলাম অনীককে নিয়ে স্লিপ ক্যাচের প্রস্তুতি করান ডমিঙ্গো ফিল্ডিং কোচ রায়ান কুক। একদম যেন সত্যিকারের ক্রিকেট ম্যাচ চলছে । রায়ান বল ছুঁড়েছেন আর ডমিঙ্গো ব্যাটে বলে তা করে পাঠিয়েছেন স্লিপে। সেখান থেকে কখনো ঝাঁপিয়ে পড়ে, উড়ে গিয়ে, ডাইভ দিয়ে কখনো বা জায়গায় দাঁড়িয়ে সেগুলো লুফেছেন শিষ্যরা। এভাবে প্রায় ঘন্টাখানেক এটি অব্যাহত ছিল।

এরপর দুপুর দুইটা নাগাদ ড্রেসিংরুম প্রান্তে শুরু হয় শর্ট ও লং ক্যাচের অনুশীলন। সেখানে অবশ্য কুককে সঙ্গ দিয়েছেন ফিটনেস ট্রেনার মারিও ভিল্লাভারায়ন। মারিও বল ছুঁড়েছেন আর কুক সেটি পাঠিয়েছেন ড্রেসিংরুমের সামনে। দৌঁড়ে এসে সেগুলো লুফে নেওয়ার চেষ্টা করেছেন শফিউল, ফরহাদ রেজা, মাহমুদউল্লাহ, সাদমান ইসলাম অনীক। চার জনের মধ্যে অবশ্য সেরার তকমা নিয়ে শেষ করেছেন শফিউল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here