লাকি সেভেনে পঞ্চপান্ডবের হবে কি আশাপূরণ?

২০০৭ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে শ্রীলংকার বিপক্ষের ম্যাচ দিয়ে নিজেদের সোনালি প্রজন্মের শুরু করেছিলো বাংলাদেশ ক্রিকেট৷ সেদিন অভিষিক্ত হয়েছিলেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ৷ পূরণ হয়েছিলো পঞ্চপান্ডবের কোটা৷ মাশরাফি, সাকিব, তামিম, মুশফিক, মাহমুদউল্লাহর পঞ্চপান্ডব ইতোমধ্যে তিন ফর্ম্যাট মিলিয়ে খেলে ফেলেছে ১০৩ ম্যাচ। যেখানে জয়ের হাফসেঞ্চুরিও পূরণ হয়েছিলো গত পরশু সোমবার৷

পঞ্চপান্ডবের আগমনের পূর্বে বাংলাদেশ ছিলো নিতান্তই এক “পুঁচকে’ দল। কেনিয়া আর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেই শুধু জয় পেত টাইগাররা। আর মাঝে মাঝে ছোটখাটো কিছু অঘটন ঘটতো। তবে পঞ্চপান্ডব আসার পর দৃশ্যপট যেন পাল্টে গিয়েছে। বাংলাদেশ এখন যে কোনো দলের চোখে চোখ রেখে খেলতে পারে৷ সমানে টোক্কা দিতে পারে বাঘা বাঘা দলগুলোকেও৷ তবে প্রদীপের নিচের অংশ যেমন সর্বদাই অন্ধকার থাকে, তেমনিভাবে পঞ্চপান্ডবেরও প্রাপ্তির সঙ্গে অপ্রাপ্তিও রয়েছে।

এখন পর্যন্ত ছয়টি টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলে ফেলেছে বাংলাদেশ। আয়ারল্যান্ড ত্রিদেশীয় সিরিজ মিলে যেটির সংখ্যা দাঁড়ালো সাতে। ছয় ফাইনালের একটিও জিতা হয়নি বাংলাদেশ। তবে কি সপ্তম ফাইনালকে ‘লাকি সেভেনে’ রূপ দিবেন মাশরাফি-সাকিবরা? কারণ, এটাই হয়তো তাঁদের শেষ ফাইনাল৷ তাঁর কারণটাও স্বাভাবিকভাবেই বলা যায়, মাশরাফি বলেছিলেন এটাই তাঁর শেষ বিশ্বকাপ। এই ফাইনালটিও না জিতলে হয়তো একটা আক্ষেপ থেকেই যাবে যে পঞ্চপান্ডব কখনো ফাইনাল জিতেনি। দেশের ইতিহাসের সেরা অধিনায়কের নেতৃত্বে সেরা জোট পারবে তো লাকি সেভেনকে নিজেদের করে নিতে?