জাতীয় দলের পর বিপিএলেও দল না পাওয়ায় আক্ষেপ ঝাড়লো নাঈম!

২০০৮ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পা রাখেন অলরাউন্ডার নাঈম ইসলাম। আসা যাওয়ার মধ্যে থাকলেও টাইগারদের হয়ে ৬ বছর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বিচরণ করেছেন। কিন্তু ২০১৪ সালের পর দেশের হয়ে আর মাঠে নামা হয়নি এই ডানহাতির। ক্রিকেটের সব ফরম্যাট মিলিয়ে জাতীয় দলের হয়ে খেলেছেন মাত্র ৭৭ টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ। তবে দলে সুযোগ পাওয়ার আশায় এখনো ঘরোয়া ক্রিকেট খেলার পাশাপাশি নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন নাঈম ইসলাম।

জাতীয় ক্রিকেটে লিগে (এনসিল) রংপুরের হয়ে নিয়মিত খেলছেন নাঈম। ঘরোয়া ক্রিকেটে রংপুরের হয়ে ব্যাট হাতে নিয়মিত রানও করছেন তিনি। জাতীয় লিগে সর্বশেষ ম্যাচে ঢাকার বিপক্ষে এক ইনিংসে ২১৬ রানের ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস খেলেন তিনি। তবে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) কারনে জাতীয় লিগের শেষ রাউন্ডের খেলা আপাতত স্থগিত থাকার কারণে খেলা হচ্ছেনা নাঈম ইসলামের।

তাছাড়া বিপিএলের কোন ফ্র্যাঞ্চাইজি তাকে দলে নেয়নি। তবে বিপিএল খেললে সুযোগ কাজে লাগানো যেত বলে মনে করেন নাঈম। কিন্তু দেশের জাঁকজমক টুর্নামেন্টে খেলতে না পারায় কিছুটা আক্ষেপ থাকলেও এইসব নিয়ে ভাবছেনা জাতীয় লিগের এই তারকা। সবমিলিয়ে, জাতীয় লিগের পরবর্তী রাউন্ডের জন্যই নিজেকে প্রস্তুত করছেন নাঈম ইসলাম।

তিনি জানান, ‘এটি সত্যি বিপিএলে খেলতে পারলে ভালো হতো। সুযোগ এলে তা কাজে লাগানো যেত। কিন্তু এখন কি পাইনি আর কি পেলাম না তা ভেবে লাভ নেই। যে ভাবে খেলছি সেই ভাবেই খেলে যেতে চাই। এগুলো নিয়ে ভাবলে আরো ভেঙে পড়বো। এখন এনসিএলের একটি রাউন্ড বাকি সেটি কিভাবে ভালো খেলা যায় সেই প্রস্তুতি নিচ্ছি।’

শুধু নাঈম ইসলাম নয় জাতীয় ক্রিকেট লিগে খেলে যাচ্ছেন এনামুল হক জুনিয়র, অলক কাপালি ও তুষার ঈমরানের মত ক্রিকেটাররা। তবে ঘরোয়া ক্রিকেটে বেশ ধারাবাহিক হলেও জাতীয় দল থেকে একরকম উপেক্ষিত নাঈম-এনামুল-তুষারা। জাতীয় দলের পাশাপাশি ‘এ’ কিংবা হাইপারফরম্যান্সে দলেও সুযোগ হচ্ছেনা এইসব ক্রিকেটারের। তবে এইভাবে চলতে থাকলে একসময় ক্রিকেট খেলার আগ্রহ হারিয়ে ফেলবেন বলে মনে করেন নাঈম।

নাঈম বলেন, ‘এটি সত্যি যে কোনো জায়গাতে ভালো করার পর আপনি একটি ভালো কিছুর প্রত্যাশা করবেন। আর সেটি যখন না হবে তখন ক্রিকেট ক্যারিয়ারে প্রভাবতো পড়বেই। কারণ সবাই একটি আশা নিয়ে এগিয়ে যায়, পরিশ্রম করে। দেখেন আমাদের ‘এ’ দল এমনকি হাইপারফরম্যান্সেও সুযোগ হয় না। এতে একটা সময় ক্রিকেট থেকে অনেক আগ্রহ কমে যাবে।’

তবে জাতীয় দল থেকে উপেক্ষিত এই ক্রিকেটাররা এখনো যে ধৈর্য নিয়ে ক্রিকেট খেলে যাচ্ছেন। নতুনরা এতটা ধৈর্য ধরবেন কিনা সে বিষয়ে বেশ সন্দিহান নাঈম। সবমিলিয়ে, এখনো সুযোগের অপেক্ষায় আছেন জাতীয় ক্রিকেটে লিগে ২৩ সেঞ্চুরির মালিক নাইম।

তার ভাষায়, ‘আমার মনে হয় আমাদের জন্য আরো একটু সুযোগ হলে ভালো হয়। আর একটা বিষয়- সুযোগ না পেলে খেলার প্রতি যে আগ্রহটা সেটা ধরে রাখাই কঠিন। আমরা তো যতটা ধৈর্য ধরি পরের প্রজন্ম ততোটা ধরতে পারবে কিনা তা নিয়েও সন্দেহ রয়েছে।’