আবারো ঢাকায় ফিরছে বিপিএল

চট্টগ্রাম পর্ব শেষে আবার ঢাকায় ফিরছে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ ক্রিকেটের (বিপিএল) চলতি আসরের খেলা। গত ২১ নভেম্বর ঢাকার প্রথম পর্ব শেষে ২৪ নভেম্বর থেকে ২৯ নভেম্বর পর্যন্ত জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে গড়িয়েছে গ্রুপ পর্বের ১০টি ম্যাচ। আর এর মধ্য দিয়ে ঢাকার বাইরে দুই পর্বের খেলার সমাপ্তি টানলো বিপিএলের আসর।

ঢাকার বাইরে প্রথম পর্বটি অনুষ্ঠিত হয়েছিল ৪ থেকে ৮ নভেম্বর। এবারই প্রথমবারের মতো সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে পর্দা উঠেছিলো দেশের ঘরোয়া ক্রিকেটের সবচাইতে জাঁকজমকপূর্ণ এই আসরের।

এবার অপেক্ষা ঢাকার দ্বিতীয় ও শেষ পর্বের। যার শুরুটা হবে আগামী ২ ডিসেম্বর থেকে। মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ওই দিন টুর্নামেন্টের ৩৫তম ম্যাচে দুপুর ১টায় রংপুর রাইডার্সের মুখোমুখি হবে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। আর দিনের অপর ম্যাচে রাজশাহী কিংসকে মোকাবেলা করবে ঢাকা ডায়নামাইটস।

বিপিএলের ঢাকা ও সিলেট পর্বে যা হয়নি তাই হয়েছে চট্টগ্রাম পর্বে। টুর্নামেন্টের এই আসরের দলীয় সর্বোচ্চ ২১৩ ও ২১১ রান কিন্তু এই ভেন্যুতেই এসেছে। ২৭ নভেম্বর রাজশাহী কিংসের বিপক্ষে ২১৩ রানের সর্বোচ্চ সংগ্রহ গড়েছিল খুলনা টাইটান্স।

আর দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২১১ রান সংগ্রহ করেছিল স্বাগতিক চিটাগং ভাইকিংস। প্রতিপক্ষ ছিলো সিলেট সিক্সার্স। এখানেই শেষ নয়। টুর্নামেন্টের এই পর্যন্ত দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ব্যবধানে (৬৮ রান) জয়টিও সাগরিকার এই মাঠেই এসেছে।

২৭ নভেম্বর ড্যারেন স্যামিদের ২১৪ রানের পাহাড় সমান লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ১৯ ওভারে গুটিয়ে গেছে ১৪৫ রানে। এর আগে গেল ১৮ নভেম্বর একই ব্যবধানে জিতেছিল সাকিবের ঢাকা ডায়নামাইটস। মজার ব্যাপার হলো সেই ম্যাচেও প্রতিপক্ষ ছিল রাজশাহী কিংস।

দলীয় রানের পাশাপাশি ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ রানও চট্টগ্রাম পর্বেই এসেছে। ২৪ নভেম্বর এখানেই নাসির হোসেনদের বোলিং লাইনআপ চুর্ণবিচুর্ণ করে টুর্নামেন্টের ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ৯৫ রানের ইনিংসটি খেলেছেন ভাইকিংসদের আফগান মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান সিকান্দার রাজা। এই রান সংগ্রহ করতে তিনি খেলেছিলেন ৪৫টি বল। যেখানে চারের মার ছিল ৯টি। আর ছয়ের মার ৬টি।

সব মিলে বিপিএলের চলতি আসরের চট্টগ্রাম পর্বটি ঘটনাবহুল ছিলো একথা বলাই যায়। এবার অপেক্ষা ঢাকা পর্বের।