দলের এমন পারফর্মেন্সে হতাশ মাহমুদউল্লাহ

দারুণ খেলেই পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে উঠেছে খুলনা টাইটান্স। কিন্তু আজ তারা কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিপক্ষে দাঁড়াতেই পারল না। ১৯.২ ওভারে মাত্র ১১১ রানে অলআউট হয়েছে। জবাবে কুমিল্লা ১৩.৫ ওভারে মাত্র ১ উইকেট হারিয়ে জয় তুলে নিয়েছে। খুলনা টাইটান্স যেভাবে হেরেছে সেটা কেউ-ই প্রত্যাশা করেনি। ম্যাচ শেষে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদও জানিয়েছেন এমন পারফরম্যান্স তিনিও আশা করেননি।

‘সত্যি কথা বলতে এমন পারফরম্যান্স আমরা আশা করিনি। ব্যাটিং-বোলিং-ফিল্ডিং তিন বিভাগেই আমরা ভালো খেলছিলাম। কিন্তু আজকে ব্যাটিংটা ভালো হয়নি। প্রথম পাওয়ার প্লেতেই তিন চারটা উইকেট হারিয়ে ফেললে কিছুই করার থাকে না। আমি কিউরিটরের সঙ্গে আলাপ করছিলাম। ওদের স্পিন যেভাবে টার্ন করছিল আমরা এমনটা প্রত্যাশা করিনি। এটা আমাদের পুষিয়ে নিতে হবে। ঢাকায় গিয়ে আশা করি নিজেদের ফর্ম ফিরে পেতে পারব।’

টপ অর্ডারের ব্যাটিং নিয়ে তিনি বলেন, ‘টপ অর্ডার শেষ ম্যাচেও ভালো করেছে। আজকে টপ অর্ডার-মিডল অর্ডার-লো অর্ডার সব জায়গাতেই ব্যাটসম্যানরা খারাপ করেছে। যেটা আগে বললাম গেম প্লানটা আবারো ওয়ার্কআউট করতে হবে। এখানে কোন সমস্যা আছে কিনা। ঢাকায় গিয়ে আমাদের কাজ করতে হবে, সেভাবেই আমাদের খেলতে হবে। সব জায়গায় আমাদের মানিয়ে নিয়ে খেলতে হবে। টুর্নামেন্টের শেষের দিকে আমরা। এই মুহুর্তের ভুলগুলো আমাদের লক্ষ্যটা নষ্ট করে দিতে পারে। চেষ্টা করবো এখান থেকে ফিরে আসার।

শিশির সমস্যা করছিল কিনা জানতে চাইলে খুলনা টাইটান্সের অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ বলেন, ‘আমরা সন্ধ্যার সময় যখন বোলিং করছিলাম, তেমন কোন টার্ন পাইনি। এমন কি ডে ম্যাচেও এমন টার্ন বা বাউন্স ছিল না। ব্যাটে সুন্দর বল আসছিল। ভাবছিলাম ব্যাটিং করলেই ভালো হবে। এই কারণেই আগে ব্যাটিং করেছি। কারণ, আমাদের স্ট্রেন্থ আমাদের বোলিং। গতকালকেও আমরা ব্যাটিং করেছিলাম। ভালো একটা টোটাল আমরা আনতে পারিনি। এই কারনে আমরা হেরে গেছি ‘

সাইফ ও আফিফ হোসেনের প্রশংসা করে তিনি বলেন, ‘সব সময়ই ভালো লাগে যখন তরুণরা পারফরম করে। আমাদের দলে বেশ কয়েকজন তরুণ খেলোয়াড় আছে। যার মধ্যে আফিফ-শান্ত অন্যতম। গতকাল আমি বলেছিলাম, যখন আমাদের তরুণরা পারফরম্যান্স করে সেটা আমাদের ক্রিকেটের জন্য ভালো। অধিনায়ক হিসেবে এটা আমার ভালো লাগে। আজকে দূর্ভাগ্যবশত হয়নি। কিন্তু টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে এমনটা হয়। গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে, পরের ম্যাচে কিভাবে তারা ফিরে আসে সেটাই দেখা।’