“ভালোবাসার সবটুকু দিয়েও একপাতা প্যারাসিটামল কেনা যায় না”

দেশের ঘরোয়া ফুটবলের এক তারকার নাম মনোয়ার হোসেন মনু। মনু নামে যিনি ঢাকাই ফুটবলে এক নামে পরিচিত। বিংশ শতাব্দীর শেষের দিকে দেশের ক্লাব ফুটবলে যে কয়জন তারকা ফুটবলার ছিলেন তাদের একজন এই মনু। মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের এক অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে বল পাঁয়ে দাপিয়ে বেড়িয়েছেন ঢাকার ফুটবলে। একেবারে খেটে খাওয়া শ্রমিক থেকে উঠে আসা এই মনুকে চেনে না এমন ফুটবল প্রমিক খুজে পাওয়া কষ্টকর।

ঢাকার ফুটবলে যখন মোহামেডানের অধঃপতনের ডাক শোনা যাচ্ছিলো তখন এই মনুর পায়েই ঘুরে দাঁড়ায় তারা। টানা তিন বছর শিরোপাহীন মোহামেডানকে ১৯৮৬ সালে শিরোপা পুনরুদ্ধার করতে সবচেয়ে বেশি ভূমিকা রাখেন এই মনু। আবাহনীর বিপক্ষে ওই ম্যাচে যখন সবাই মোহামেডানের হার অবশ্যম্ভাবী দেখছিলেন তাদের চমকে দিয়ে এই মনুই জয় উপহার দেন মোহামেডানকে। মনু আর ইলিয়াসের দুর্দান্ত দুই গোলে আবাহনীর প্রতিপত্যি ধুমড়ে মুচড়ে দেয় মোহামেডান।

সেই জয়ের পর মনুকে মাথায় তুলে নেচেছেন মোহামেডান সমর্থকরা। আবেগ আপ্লুত হয়ে সালাউদ্দিন থখন বলে ছিলেন বিগত ২০০ বছরে এম গোল হয়নি। সেই সময় সকলের ভালোভাসায় সিক্ত হয়েছিলেন মনু। এতো এতো ভালোবাসার মাঝে অর্থ লোভ কিংবা পারিশ্রমিক প্রাধান্য ছিলো একেবারেই গৌণ।

সবার ভালোবাসার সেই মনু আজ পিজি হাসপাতালের বেডে শুয়ে কাতরাচ্ছেন আর স্মৃতি খোঁজে ফিরছেন। ১৯৮৬ সালের সেই ফাইনাল পূর্ববর্তী সময়ে মোহামেডান ছাড়ার কথা চিন্তা করলে তাকে দলে রাখার জন্য সাবেকদের উদ্যোগের কথা মনে করে মনু জানান, সালাহউদ্দিন (বর্তমান বাফুফে সভাপতি) ভাই আমার বাসায় গিয়া কইসিলো তরে আমি সেকেন্ড সালাহ উদ্দিন বানামু। তিনি আরও বলেন, বাদল (বাদল রায়) ভাই সালাম (সালাম মুর্শেদী) ভাই আমারে কইসিলো তুই যদি মোহামেডান ছাড়োস তাইলে আমাগো লাশের উপর দিয়া যাওন লাগবো।

তাদের কথায় টাকার কথা না ভেবেই মনু রয়ে যান মোহামেডানে। মাঠে নামেন এবং শিরোপা জয় করে পান দর্শকদের ভালোবাসা। আজ সেই মনু মুমূর্ষু প্রায় অবস্থায় কাতরাচ্ছেন হাসপাতালের বেডে। ভালোবাসার সেই মানুষের আজ অর্থ অভাবে চিকিৎসা থমকে আছে। দেখার যেনো কেউ নাই। যাদের ভালোবাসায় সিক্ত হয়ে জীবনের সেরা সময়টা পার করে এসেছেন মনু সেই তারাই খোঁজ নেয়ার সময় পাননা মনুর। তাদের ভালোবাসাই আজ কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে মনুর জন্য।

তবু মনু সেই ভালোবাসার টানে বেঁচে থাকতে চান। মুমূর্ষু প্রায় মনু কাঁদো কাঁদো কন্ঠে বলেন, ভালোবাসার সবটুকু দিয়েও যে একপাতা প্যারাসিটামল কিনতে পাওয়া যায় না! তারপরও সমর্থকদের যে ভালবাসা আমার বুকে ধারন কইরা আছি সে ভালবাসা আমি মইরা গেলেও বিক্রি করতে পারুম না, যে কয়দিন বাঁচি সেই ভালবাসা নিয়াই বাঁচতে চাই। মনু বাঁচতে চান ভালোবাসা আমাদের নিয়ে। আমরা কি একটু ভালোবাসা দিতে পারিনা মনুকে? অন্তত তাকে বাঁচানোর জন্য…