যে কারনে বাংলাদেশের কাছে হোয়াইটওয়াশ হয়েছিল পাকিস্তান

পাকিস্তানের সাবেক কোচ ওয়াকার ইউনুসকে এক হাতে নিলেন পাকিস্তানের সাবেক উইকেটরক্ষক কামরান আকমল। কামরানের মতে, পাকিস্তান ক্রিকেটের কিছুদিন আগে ফর্মহীনতার জন্য একমাত্র দায়ী ছিলেন ওয়াকার। তিনি আরও বলেন ২০১৫ সালে বাংলাদেশের সাথে হোয়াইটওয়াশের জন্য ওয়াকার তার দায় এড়িয়ে যেতে পারেন না।

কামরান আকমল বলেন, ওয়াকার ইউনুস ২০১০-২০১১ এবং ২০১৪-২০১৬ সালে পাকিস্তান জাতীয় ক্রিকেট দলের প্রধান কোচ ছিলেন। তবে তিনি ওই সময়ে দলকে ঠিকভাবে নির্দেশনা দেননি।

তিনি
আরও বলেন, ক্রিকেটারদের ওপর ওয়াকারের অতি উৎসাহী এক্সপেরিমেন্টের কারণে দলের গুরুত্বপূর্ণ ক্রিকেটারদের সাইড লাইনে বসিয়ে রাখা হয়েছে। এ কারণেই পাকিস্তানের ক্রিকেট ২-৩ বছর পিছিয়ে গেছে।

কামরান আকমল পাকিস্তানের হয়ে ৫৩টি টেস্ট এবং ১৫৭ ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছেন। তবে এখন আর জাতীয় দলে তাকে দেখা যায় না।

ওয়াকারের বিরুদ্ধে এই প্রথম জাতীয় দলের কোনো রানিং ক্রিকেটার এভাবে খোলাখুলি সমালোচনা করলেন। ভারতে অনুষ্ঠিত শেষ টি২০ বিশ্বকাপে বাজেভাবে পাকিস্তানের হারের পর ওয়াকারকে কোচের পদ ছাড়তে বাধ্য করা হয়।

আকমল বলেন, বেশ কিছু ক্রিকেটারের সঙ্গে ওয়াকারের দ্বন্দ্ব ছিল। পাকিস্তান দলকে সামনে এগিয়ে নেয়ার কোনো পরিকল্পনাই তার ছিল না। উদাহরণ হিসেবে আকমল তুলে ধরেন ২০১৫ বিশ্বকাপের কথা।

তিনি বলেন, ওই বিশ্বকাপে হঠাৎ করেই ইউনিস খানকে ইনিংসের গোড়াপত্তন করতে বলা হয়। তাছাড়া সরফরাজ আহমেদকে টুর্নামেন্টের শেষের দিকে একাদশে খেলানোর বিষয়টিও তুলে ধরেন।

তাছাড়া ওয়াকার কোনো ক্রিকেটারকে দলে নিয়মিত হওয়ার সুযোগও দেননি বলে দাবি করেন আকমল।

তার ভাই উমর আকমলের কথা তুলে ধরে কামরান আকমল বলেন, এশিয়া কাপে উমর আকমল আগের ম্যাচে শতরান করার পরও পরের ম্যাচে শহীদ আফ্রিদির পরে ব্যাট করতে নামে। ওয়াকার একজন গ্রেট ক্রিকেটার এ বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই। তবে কোচ হিসেবে তিনি ব্যর্থ।

বাংলাদেশের সঙ্গে সিরিজ হারা নিয়ে আকমল বলেন, বিশ্বকাপের পর দলে ৬ থেকে ৭ জন নতুন ক্রিকেটার নিয়ে বাংলাদেশ সফর করে পাকিস্তান। ফলাফল আমরা প্রথমবারের মতো বাংলাদেশের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ হেরেছি।

ওয়াকার যখন প্রথমবার কোচ ছিলেন তখনই কর্তৃপক্ষের শিক্ষা নেয়া উচিৎ ছিল বলে মনে করেন আকমল।

অন্য কোচদের সঙ্গে দলে খেলার বিষয়ে এই উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান বলেন, আমি অন্য আরও কোচদের সঙ্গে দলে ছিলাম। যেমন বব উলমার। তারা দলকে নিয়ে নানা রকম পরিকল্পনা হাতে নিতেন। ক্রিকেটারদের সঙ্গে পরামর্শ করতেন। ওয়াকার ক্রিকেটারদের কঠোর পরিশ্রম করাতেন।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে দলে নিজের অন্তর্ভুক্তির বিষয়টি তুলে ধরে কামরান আকমল বলেন, যখন আমাকে দলে নেয়া হল তখন সেটা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন ওয়াকার।

তবে ওয়াকার যখন কোচ ছিলেন তখন দলে দুইজন উইকেটরক্ষক রাখার পক্ষে ছিলেন। এই বিষয়টির প্রশংসা করেন আকমল।