ভাল খেলতে পারেননা মুশফিক!

বর্তমানে শিশু মুক্তামনি ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন। ১১ বছর বয়সী মুক্তামনির বাড়ি সাতক্ষীরা জেলার সদর উপজেলার কামারবায়সা গ্রামে। বাবা ইব্রাহীম হোসেন মুদির দোকানি। বিরল রোগে আক্রান্ত শিশু মুক্তামনিকে দেখতে হাসতাপালে গেছেন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের টেস্ট অধিনায়ক মুশফিকুর রহীম।

গত শনিবার দুপুর দেড়টার কিছু আগে তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (ঢামেক) পৌঁছান। এরপর মুশফিক মুক্তামনির ওয়ার্ডে যান। ডান হাতসহ বুকের ডান পাশ বিরল রোগে আক্রান্ত শিশু মুক্তামনির। এই রোগে আক্রান্ত তার হাত অনেকটাই বৃক্ষের মতো। ক্রমেই তা ছড়িয়ে পড়ছে।

৬০৮ নাম্বার কেবিনে ভর্তি মুক্তামনির পাশে ৫ মিনিট ছিলেন মুশফিক। দুপুর ১ টা ৪০ মিনিটে মুশফিক মুক্তামনির কেবিনে প্রবেশ করেন। বার্ণ ও প্লাস্টিক সার্জারী ইউনিটের সমন্বয়কারী ডা. সামন্ত লাল সেন এ সময় উপস্থিত ছিলেন। মুশফিকুর রহীম মুক্তামনির মাথায় হাত বুলিয়া বললেন, ‘তুমি কোন চিন্তা করোনা।

আমরা সবাই তোমার পাশে আছি। তুমি সুস্থ্য হয়ে যাবে। আমরা সবাই তোমার জন্য দোয়া করছি। সবাইকে বলেছি তোমার জন্য দোয়া করার জন্য।’ মুক্তামনি মুশফিককে দেখে হেসে দিয়ে বলে, ‘আমি তোমার খেলা দেখি।’ তখন মুশফিক বলেন, ‘আমি তো ভাল খেলতে পারিনা।’ তখন মুক্তামনিও হেসে দেয়। মুশফিক বলেন, ‍‘তুমি সুস্থ্য হয়ে উঠ মা। আমরা সবাই তোমার পাশে আছি।’

মুক্তামনির শরীরে রোগটির লক্ষণ ধরা পড়ে জন্মের মাত্র দেড় বছর পরই। ছোট মার্বেলের মতো গোটা দেখা দিয়েছিল তখন। পরে তা বাড়তে থাকে এবং এখন শরীরের প্রায় একটা অংশ পুরোটাই আক্রান্ত হয়েছে।

মুশফিক এ সময় মুক্তামনির বাবার সাথে তার খবরা খবর নেন এবং কোন দু:চিন্তা না করার আহ্বান জানান। মুক্তামনির এই রোগের খরব বিশ্ব মিডিয়াতেও উঠে এসেছে।