ভারতের ৬০০ রানের বিপরীতে ব্যাটিং বিপর্যয়ে শ্রীলঙ্কা

গল টেস্টের প্রথম ইনিংসে ৬০০ রানে অলআউট হলো ভারত। ৬০০ রানের পাহাড় সম রানের বিপরীতে ব্যাটিং এ নেমে ১৫০ রানে ৫ উইকেট হারিয়েছে শ্রীলঙ্কা।
মাত্র ৭ রানেই প্রথম উইকেট হারিয়ে বিপর্যয়ের সূচনা। এরপর দলীয় ৬৮ রানে জোড়া আঘাত হানে ভারতীয় বোলার রা। গুনাথিলাকা এবং কুশল মেন্ডিস কে হারিয়ে ধুকতে থাকা শ্রীলঙ্কা কে স্বস্তির আশ্বাস দেখানো থারাঙ্গা ৬৮ রানে ফিরে যান দলীয় ১২৫ রানে। এরপর ১৪৩ রানে ফিরে যায় ডিকোলা।

এর আগে,

৩ উইকেটে ৩৯৯ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিন শুরু করা ভারত দিনের প্রথম বলেই ৪০০ রানের মাইলফলক ছুঁয়ে ফেলে।

ক্যারিয়ারের ১২তম শতককে ১৫০ রান পার করিয়ে ১৫৩ রানে নুয়ান প্রদীপের চতুর্থ শিকারে পরিণত হন চেতেশ্বর পুজারা। এই দিয়ে ৬ষ্ঠ বার ১৫০ রানের গন্ডি পার হয়েছেন তিনি। আজিঙ্কা রাহানের ১২তম টেস্ট অর্ধশতককে ৫৭ রান পার করতে দেননি লাহিরু কুমারা।

নিজের টেস্ট ক্যারিয়ারে মাত্র দ্বিতীয় বারের মতো ১০০ রান খরচা করার আগে কোন উইকেট পাননি রঙ্গনা হেরাথ। এর আগে ২০০০ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে এমনটি হয়েছিলো। তবে হেরাথ উইকেট খরা দূর করেন ঋদ্ধিমান সাহার উইকেট নিয়ে।

ক্যারিয়ারের ৫০তম টেস্টের ১ম ইনিংসে ব্যাট হাতে ৩ রানের জন্যে ৫০ পূর্ণ করতে পারেননি রবিচন্দন অশ্বিন। নুয়ান প্রদীপের বলে ডিকওয়েলাকে ক্যাচ দিয়ে অশ্বিন ফেরেন ৪৭ রান করে। অশ্বিনকে ফিরিয়েই টেস্ট ক্যারিয়ারে ১ম বারের মতো ৫ উইকেট দখল করেন প্রদীপ। এর আগে ৬ বার ৪ উইকেটের দেখা পেলেও কখনও ৫ উইকেটের দেখা পাননি তিনি। পরে রবীন্দ্র জাদেজাকে বোল্ড করে ক্যারিয়ারসেরা বোলিং ফিগার (১৩২/৬) নিয়ে শেষ করেন প্রদীপ।

মারমুখী ভঙ্গিতে খেলে অর্ধশতকের দেখা পান হার্ডিক পান্ডিয়া
অভিষেক টেস্টেই নিজের মারমুখী ব্যাটিং দিয়ে নজর কেড়েছেন হার্ডিক পান্ডিয়া। ৫টি চার ও ৩টি ছয়ে ৪৯ বলে ৫০ রান করে লাহিরু কুমারার তৃতীয় শিকারে পরিণত হন তিনি। ৮ নম্বর বা তার নীচে নেমে অভিষেক টেস্টেই অর্ধশতক করা ৫ম ভারতীয় পান্ডিয়া। এর আগে ৩টি ছয়ে ৩০ বলে ৩০ রান করা মোহাম্মদ শামিকেও ফিরিয়েছিলেন কুমারা।