শ্বশুরের ফেডারেশনে জামাই রাজা!

শ্বশুরের ফেডারেশনে এতদিন ধরে খবরদারি করছেন মেয়ের জামাই। এবার মেয়েও যোগ দিয়েছেন। টেকনিক্যাল লোক না হয়েও ঢুকে পড়েছেন টেকনিক্যাল কমিটিতে। ফেডারেশনের স্টাফদের রুমের মধ্যে ডেকে নিয়ে নানা আদেশ-উপদেশ দেন। ফেডারেশন কীভাবে চলবে তারও গাইডলাইন দিয়ে থাকেন। আশ্চর্যজনক হলেও এই চাঞ্চল্যকর তথ্য মিলেছে দেশের একটি শীর্ষ ক্রীড়া ফেডারেশন সম্পর্কে।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামকেন্দ্রিক এ ফেডারেশনের সভাপতি প্রায়ই বিদেশ ঘুরে বেড়ান। বিশেষ করে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে জনশক্তি রফতানিসহ নানা ধরনের ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত ওই ব্যক্তি। তারই সুবাদে ওই ফেডারেশনের সভাপতির মেয়ে আর জামাইয়ের অবাধ যাতায়াত রয়েছে ফেডারেশনে। শ্বশুরের রুমে বসে ফেডারেশনের স্টাফদের ডেকে নেন মাঝেমধ্যে। ফেডারেশনের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের খবরদারিও করেন তিনি। অবশ্য জামাই-শ্বশুর ফেডারেশনের এ ধরনের ঘটনা এর আগেও হয়েছে। তবে সেক্ষেত্রে শ্বশুর সভাপতি ছিলেন না, ছিলেন সাধারণ সম্পাদক। কাবাডি ফেডারেশনের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মুনির হোসেনের মেয়ের জামাই মাহফুজুর রহমানকে নিয়ে কাবাডি অঙ্গনে কম বিতর্ক হয়নি। ওই ফেডারেশনে একসময় চলত শালা-দুলাভাইয়ের শাসন।

ফেডারেশনের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলামের শ্যালক ছিলেন
সহ-সভাপতি পারভেজ। এ প্রসঙ্গে এক ক্রীড়া সংগঠক বলেন, ‘জামাই-শ্বশুর, শালা-দুলাভাইরাই ক্রীড়াঙ্গনে যত অপকর্মের নায়ক। এখানে সম্পর্কের সূত্র ধরে কম দুর্নীতি হচ্ছে না। কিন্তু রোধের কোনো উপায় নেই।’