বিপিএলে একই দলে খেলবেন তিন থেকে পাঁচজন বিদেশী ক্রিকেটার

বিপিএলের প্রথম চার আসরে একটি দল সর্বোচ্চ ৪ জন বিদেশি ক্রিকেটার রাখতে পারতো একাদশে। তবে পঞ্চম আসরে আসছে বড় পরিবর্তন। আগামী বিপিএলে একাদশে ৫ জন বিদেশি ক্রিকেটার রাখতে পারবে একটি দল। ইচ্ছা করলে ৩ জন বিদেশি খেলানোরও সুযোগ রয়েছে।

সোমবার রাজধানীর একমি ভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানিয়েছেন বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য সচিব ইসমাইল হায়দার মল্লিক।

একাদশে অতিরিক্ত বিদেশি ক্রিকেটার প্রসঙ্গে তিনি বলেছেন, ‘ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো অতিরিক্ত একজন বিদেশি ক্রিকেটার খেলানোর নিয়মের জন্য অনুরোধ জানিয়েছিল আমাদের। আমরা প্রত্যেক ফ্র্যাঞ্চাইজির কাছ থেকে এ বিষয়ে লিখিত মতামত চেয়েছিলাম। ৮টির মধ্যে ৭টি ফ্র্যাঞ্চাইজি মতামত জানিয়েছিল, একটি কিছু জানায়নি। ৫টি ফ্র্যাঞ্চাইজি পাঁচ জন এবং দুটি ফ্র্যাঞ্চাইজি চার জন করে বিদেশি খেলানোর প্রস্তাব দিয়েছিল।’

সব কিছু বিবেচনা করে ৫ বিদেশির প্রস্তাব যৌক্তিক বলে মনে হয়েছে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের। এ বিষয়ে ইসমাইল হায়দার মল্লিকের মন্তব্য, ‘গভর্নিং কাউন্সিল মনে করেছে, দল বাড়ার কারণে ৫ জন করে বিদেশি খেলানোর অনুমোদন দেওয়াই যুক্তিযুক্ত। আমরা তাই সিদ্ধান্ত নিয়েছি, প্রত্যেক দল একাদশে সর্বোচ্চ ৫ এবং সর্বনিম্ন ৩ জন করে বিদেশি রাখতে পারবে।’

বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য সচিব আরও জানিয়েছেন, ‘একটি দল যে কোনও সময় বিদেশি খেলোয়াড় রেজিস্ট্রেশন করতে পারবে। তবে অকশনের ড্রাফট থেকে কমপক্ষে দুজন বিদেশিকে নিতে হবে। এছাড়া অকশন থেকে অবশ্যই ১৩ জন স্থানীয় খেলোয়াড় নিতে হবে।’ প্রতিটি দল আইকন সহ আগের আসরের চার জন খেলোয়াড় রেখে দিতে পারবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

এর আগে ৪ নভেম্বর শুরু হওয়ার কথা বলা হলেও সোমবার জানানো হয়েছে, বিপিএল শুরু হবে ২ নভেম্বর। দু দিন এগিয়ে আনার কারণ হিসেবে ইসমাইল হায়দার মল্লিক বলেছেন, ‘বিপিএলের টাইমিংয়ের সঙ্গে অস্ট্রেলিয়ার বিগ ব্যাশ এবং দক্ষিণ আফ্রিকার টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টের টাইমিং মিলে গেছে। এছাড়া একটি দল বেড়ে যাওয়ায় আমরা ২ নভেম্বর শুরু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। ৩১ অক্টোবর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কনসার্ট করার পরিকল্পনা আছে। ১৫ নভেম্বরের মধ্যে টুর্নামেন্ট শেষ করার ইচ্ছা আমাদের।’