কৌতিনহোকে দলে ভেড়াতে লন্ডনে বার্সা অফিশিয়ালরা

নেইমারের ট্রান্সফার ইস্যুতে স্বস্তি ফিরেছে বার্সেলোনা শিবিরে। এবার দলবদলের বাজারে বড় চমক নিয়ে আসছে স্প্যানিশ জায়ান্টরা। ন্যু ক্যাম্পে আসছেন আরেক ব্রাজিলিয়ান তারকা! অনেকদিনের টার্গেট লিভারপুল থেকে ফিলিপ্পে কুতিনহোকে ভাগিয়ে আনতে লন্ডনে অবস্থান করছে বার্সার অফিসিয়ালরা।

স্প্যানিশ ক্রীড়া দৈনিক ‘স্পোর্ট’র বরাত দিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে এমন খবরই প্রকাশিত হচ্ছে। সূত্রমতে, অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার কুতিনহোকে সই করাতে আলোচনার ফলপ্রসূ অগ্রগতি হয়েছে। কিন্তু বার্সাকে ১০০ মিলিয়ন ইউরোর বেশি খরচ করতে হবে। এতে ওয়ার্ল্ড ট্রান্সফার রেকর্ডও হয়ে যেতে পারে। যেটি এখন পল পগবার দখলে (গত বছর জুভেন্টাস ছেড়ে রেকর্ড ১০৫ মিলিয়ন ইউরোতে শৈশবের ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে ফেরেন ফ্রেঞ্চ মিডফিল্ডার)।

শেষ পর্যন্ত কী হবে সেটিই এখন দেখার বিষয়! নতুন মৌসুম সামনে রেখে মিডফিল্ডের শক্তি বাড়াতে বিশ্বমানের কাউকে পেতে মরিয়া বার্সা। ২৫ বছর বয়সী কুতিনহোর প্রতি তাদের আগ্রহ নতুন কিছু নয়। কিন্তু লিভারপুল সাফ জানিয়ে আসছিল তাদের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় বিক্রির জন্য নয়। অন্যদিকে, পিএসজির ইতালিয়ান মিডফিল্ডার মার্কো ভেরাত্তিকে পাওয়ার আগ্রহ দেখালেও ইতিবাচক সাড়া মিলছে না।

তবে অর্থের কাছে সব হিসাবনিকাশ উল্টে যেতে কতক্ষণ! ট্রান্সফার উইন্ডোতে যে শেষ বলে কিছু নেই। কুতিনহো স্পেনে এলে অবাক হওয়ারও কিছু থাকবে না। জাতীয় দলের সতীর্থকে পেলে নেইমার কতটা খুশি হবেন তাও আর বলার অপেক্ষা রাখে না। এর আগে নিজেও কুতিনহোকে বার্সায় দেখার ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন।

সাম্প্রতিক সময়ে নেইমারেরই বার্সায় থাকা নিয়েই এক ধরনের অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছিল। রেকর্ড ট্রান্সফার ফি’র বিনিময়ে পিএসজিতে যোগ দেওয়ার সম্ভাবনার খবরে সরগরম ছিল গোটা ফুটবল বিশ্বই। লিওনেল মেসি ও লুইস সুয়ারেজের হস্তক্ষেপে নাকি বার্সায় থেকে যেতে রাজি হয়েছেন পেলের উত্তরসূরি। নেইমার নাটকের অবসানে মেসি-সুয়ারেজের হস্তক্ষেপ

যদিও মুখ থেকে কখনো বলেননি যে চলে যাবেন। কিন্তু মেসি-সুয়ারেজকে যে আশ্বাস দিয়েছেন সেটিই তার মুখ থেকে শুনতে চাইছে ক্লাব কর্তৃপক্ষ। বর্তমানে প্রাক মৌসুমের প্রস্তুতিতে যুক্তরাষ্ট্রে ইন্টারন্যাশনাল চ্যাম্পিয়নস কাপে (আইসিসি) ব্যস্ত সময় পার করছে এফসি বার্সেলোনা। জুভেন্টাসের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে (২-১) জোড়া গোল করে দলকে জয় উপহার দিয়ে নেইমার বুঝিয়ে দিয়েছেন ক্লাবের জন্য তিনি কতটা গুরুত্বপূর্ণ।

প্রসঙ্গত, স্প্যানিশ লিগে (লা লিগা) খেলার অভিজ্ঞতা কুতিনহোর জন্য নতুন নয়। ২০১৩ সালের জানুয়ারিতে ইন্টার মিলান ছেড়ে লিভারপুলে পাড়ি জমানোর আগের মৌসুমের শেষ অর্ধটা এসপানিওলের হয়ে খেলেছিলেন।