কঠিন এক দাবি তুললেন মিতালি

শেষ পর্যন্ত প্রথম বারের মতো বিশ্বকাপ শিরোপাটা জিততে পারেনি ভারতীয় মেয়েরা। রোববার লর্ডসের ফাইনালে স্বাগতিক ইংল্যান্ডের কাছে তারা নাটকীয়ভাবে হেরে গেছে ৯ রানে। তবে শিরোপা স্বপ্ন পূরণ না হলেও এবারের নারী বিশ্বকাপে দলের পারফরম্যান্সে ভীষণ খুশি ভারতের অধিনায়ক মিতালি রাজ। গ্রুপপর্বে দারুণ পারফরম্যান্সের পর সেমিফাইনালে ৬ বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে ফাইনালে ওঠে ভারত। মিতালির বিশ্বাস, বিশ্বকাপে দলের এই পারফরম্যান্স ভারতের নারী ক্রিকেটে জাগরণের জোয়ার তুলবে। দেশের তরুণ প্রজন্মের মেয়েদের ক্রিকেট খেলার প্রতি অনুপ্রাণিত করবে।

দলের এই বিস্ময়কর পারফরম্যান্সের পর দেশের মানুষ এবং ভারতের ক্রিকেট কর্তাদের কাছে একটা আরজিও পেশ করলেন মিতালি। তার দাবি, নারী ক্রিকেটারদের পুরষদের সমান সম্মান এবং টাকা-করি দেওয়া হয়! নারীকে পুরুষের সমঅধিকার দেওয়ার অঙ্গীকার বিশ্বের প্রায় সব দেশই করেছে। কিন্তু সেটা শুধু কাগজে-কলমেই সীমাবদ্ধ। বাস্তবে কোনো ক্ষেত্রেই নারীরা পুরুষের সমান মর্যাদা-সম্মান পান না। অর্থ করির প্রশ্নে তো আরও অনেক পেছনে।

অন্য সব বিভাগের চেয়ে ক্রীড়া ক্ষেত্রে বৈষম্যটা যেন আরও বেশী। টেনিস, ফুটবল কিংবা, ক্রিকেট-কোনো ক্ষেত্রেই নারীরা পুরুষদের সমান সম্মান এবং বেতন-ভাতা ম্যাচ ফি পান না। মিতালির কথা, পুরুসরা যে ক্রিকেট খেলে, তারাও সেই ক্রিকেটই খেলে, তাহলে মেয়েরা কেন সম্মান আর আর্থিক দিক থেকে পিছিয়ে থাকবে? সমান সম্মান, টাকাপয়সার পাশাপাশি অন্যান্য সুযোগ সুবিধা এমনকি বিভিন্ন পণ্যের দ্যূতিয়ালি চুক্তির ক্ষেত্রেও পুরুষ ক্রিকেটারদের সমকক্ষতা দাবি করলেন মিতালি।

দলের অসাধারণ পারফরম্যান্সের জন্য সোমবার ইংল্যান্ডে ভারতের হাইকমিশনে সংবর্ধনা দেওয়া হয় ভারতের নারী ক্রিকেট দলকে। সেই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানেই আরজিটা জানালেন ৩৪ বছর বয়সী ভারতের এই নারী ক্রিকেটার, ‘আমরা টুর্নামেন্টে অসাধারণ পারফরম্যান্স করেছি। আমি নিশ্চিত, এই সাফল্য ভারতের নারী ক্রিকেটকে অন্য মাত্রা দেবে। আশা করি এখন থেকে প্রত্যেকেই নারী ক্রিকেটকে বিশেষ দৃষ্টিতে দেখবে এবং নারী ক্রিকেটারদের পুরুষ ক্রিকেটারদের সমান সম্মান এবং সমান আর্থিক সুযোগসুবিধা দেবে।’ সেটা হলে নারী ক্রিকেট আরও অনেক দূর এগিয়ে যাবে বলেই বিশ্বাস টুর্নামেন্ট শেষে আইসিসি ঘোষিত বিশ্বকাপ দলের অধিনায়ক নির্বাচিত হওয়া মিতালির।