বাংলাদেশ সফরে আসার ব্যাপারে যা লিখলো অস্ট্রেলিয়ার সংবাদমাধ্যম

সামনে আসছে অস্ট্রেলিয়া সিরিজ, তাই সেই অনুযায়ী অনুশীলন করে যাচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। কিন্তু সময় যত গড়াচ্ছে, একটা শঙ্কাও তত বাড়ছে। এখনো নিজ দেশের ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে আর্থিক চুক্তি নিয়ে বিরোধটা যে তাদের মিটছে না। তাহলে স্টিভ স্মিথ-ডেভিড ওয়ার্নাররা আদৌ বাংলাদেশে আসবে তো? কিন্তু সেই শঙ্কা যতটাই থাকুক বিসিবি অবশ্য নির্ভার থাকার কথাই বলছে। তবে অস্ট্রেলিয়ার সংবাদ মাধ্যম আবারো নিজ দেশের ক্রিকেটারদের বাংলাদেশ সফর নিয়ে শঙ্কার কথাই প্রকাশ করেছে।

অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট বোর্ড এবং ক্রিকেটারদের সংগঠন এসিএ একটা সমঝতার পথে এগিয়েছিল। এসিএ ‘সর্তাবলী পত্র’ পাঠিয়েছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়াকে। যে সর্তাবলি পত্রে মেমোরেন্ডাম অব আন্ডারস্ট্যান্ডিং (মোউ) বাস্তবায়নে অটল ক্রিকেটাররা। তাছাড়া এই ‘শর্তাবলী পত্র’ বাস্তবায়নের পর পরবর্তি পদক্ষেপ গ্রহণে যে সময় প্রয়োজন তাতে অ্যাশজ শুরুর সময় পেরিয়ে যাবে জানিয়ে সিএকে মেইল করেছেন এসিএর প্রধান অ্যালিস্টার নিকোলসন। আর অ্যাশেজ হুমকির মধ্যে পড়ে যাওয়া মানে স্বাভাবিক ভাবেই বাংলাদেশ ও ভারত সফরও শঙ্কায় পড়ে যাওয়া। কারণ অ্যাজেশ শুরু হবে নভেম্বরে। আর অস্টেলিয়ার বাংলাদেশ সফর আগস্টে। এরপর ভারত সফর। অস্ট্রেলিয়ার সংবাদ মাধ্যম সেই শঙ্কাই প্রকাশ করেছে। ১৮ আগস্ট অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের বাংলাদেশ সফরে আসার কথা।

এদিকে একদিন আগেই বিসিবির পক্ষ থেকে প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন চৌধুরী সুজন মুখোমুখি হয়েছিলেন সংবাদ মাধ্যমের। ওদিকে (অস্ট্রেলিয়ায়) যাই হোক, তিনি নির্ভারতার কথাই শুনিয়েছেন। সুজন বলেন, ‘ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে সিরিজ বাতিল হওয়ার মতো কোনো কথা আমাদের হয়নি। তবে আজ (গতকাল) তাদের সঙ্গে আমাদের যোগাযোগ হয়েছে। আগামী ২৫ তারিখ থেকে তাদের একটি পর্যবেক্ষক দল বাংলাদেশ সফর করবে। ’

কিন্তু অস্ট্রেলিয়ার মিডিয়ার যে খবর আর সত্যিকার অর্থেই যে পরিস্থিতি তাতে শঙ্কা কিন্তু থেকেই যায়।