বাংলাদেশ সফর বাতিলে গোপনে কি করছেন স্মিথ-ওয়ার্নাররা !

বাংলাদেশ সফর বয়কটের জন্য স্টিভেন স্মিথের অস্ট্রেলিয়ার দলের খেলোয়াড়রা গোপনে ভোটাভুটি সেরে ফেলেছেন! এই খবর সোমবার বেরিয়েছে অস্ট্রেলিয়ান মিডিয়ায়।

এদিন সকালেই নাকি সিডনিতে অস্ট্রেলিয়ার সিনিয়র ক্রিকেটাররা সামনের মাসের বাংলাদেশ সফর বয়কটের পক্ষে বিপক্ষে ভোটাভুটি করেছেন। আর সেটি ঘটেছে এই সফরের আগে অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেট বোর্ড সিএর সাথে তাদের চলমান টানাপড়েন না মেটার আশংকা থেকে।

গেল সপ্তাহে সিএর সাথে অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটারদের
সংগঠন এসিএর আলোচনা ভেস্তে যায়। নতুন করে আবার এসিএ খেলোয়াড়দের পক্ষে শর্তাবলী পাঠিয়েছে বোর্ডের কাছে। কিন্তু খুব শিগগিরই কোনো সমস্যা মেটার সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে না। তো সোমবার সিডনিতে অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ, সহ-অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নারসহ এসিএর প্রধান নির্বাহী অ্যালিস্টার নিকলসন বৈঠকে বসেন।

এই বৈঠকে নানামুখী আলোচনা হয়। সেখানে বোর্ডের সাথে বিশেষ চুক্তিতে বাংলাদেশ সফরের বিষয়টাও আসে। সেটি হতে পারে সাময়ীক চুক্তি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত গত ২ জুলাই তাদের করা বৈঠকের সিদ্ধান্তই বহাল থাকে। বোর্ডের সাথে মোউ বা আনুষ্ঠানিক পূর্ণ চুক্তি না হওয়া পর্যন্ত সমস্ত সফর বয়কট করার সিদ্ধান্তই আসে। ১০ আগস্ট থেকে ডারউইনে অস্ট্রেলিয়ার বাংলাদেশ সফরের দলের ক্যাম্প শুরু করার কথা। ভোটাভুটি হলো আদৌ তারা ক্যাম্পে যোগ দেবেন কি না। সিদ্ধান্ত, বোর্ডের সাথে চুক্তি না হলে ক্যাম্পে যাবেন না তারা। ১৮ আগস্ট বাংলাদেশে পৌঁছানোর কথা অস্ট্রেলিয়া দলের। এরপর দুই টেস্টের সিরিজ খেলার সূচি নির্ধারিত।

তিন সপ্তাহ পেরিয়ে গেছে অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটাররা বেকার। ৩০ জুন ছিল বোর্ডের দেওয়া প্রস্তাব অনুযায়ী কেন্দ্রীয় চুক্তিতে সই করার শেষ দিন। কিন্তু তৃণমূল পর্যায়ের ক্রিকেটে রাজস্ব ভাগাভাগিতে বোর্ড বৈষম্য করছে দেখে আগে থেকেই বেঁকে বসেছিল অস্ট্রেলিয়া দল। এরপর অস্ট্রেলিয়া ‘এ’ দলের দক্ষিণ আফ্রিকা সফর বয়কট করে খেলোয়াড়দের সংস্থা।

এখন যে অবস্থা তাতে নভেম্বরে অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠেয় অ্যাশেজ নিয়েও শঙ্কা। ডেভিড ওয়ার্নার তো আশার আলো দেখছেন বলে মনে হচ্ছে না।