নিজেকে মেসির উপরে দেখতে চান রোনালদো

নিজেকে সবসময়ই শীর্ষে দেখতে চান ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো। হতে চান সবার সেরা। তাই লিওনেল মেসি-নেইমাররা যদি তাকে ছাপিয়ে যায়, এই ভয় থেকে আরও পরিশ্রম ও ভালো করার অৃনুপ্রেরণা পান রিয়াল মাদ্রিদের এই তারকা ফরোয়ার্ড।

২০০৮ সাল থেকে বর্ষসেরা ফুটবলারের পুরস্কার নিজেদের মধ্যে ভাগাভাগি করে নিচ্ছেন মেসি ও রোনালদো। গত জানুয়ারিতে চতুর্থবারের মতো বর্ষসেরা ফুটবলারের পুরস্কার জিতেন রোনালদো। রিয়ালের হয়ে গত মৌসুমে লা লিগা ও চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শিরোপা জেতা এই তারকা পঞ্চম ব্যালন ডি’অরের জন্যও ফেভারটি।

অবশ্য শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইটা কেবল মেসির সঙ্গে নয়, বার্সেলোনার আরেক ফরোয়ার্ড নেইমার, বায়ার্ন মিউনিখের রবের্ত লেভানদোভস্কি, ইউভেন্তুসের গনসালো হিগুয়াইনের সঙ্গে বলেও ইএসপিএনকে জানান রোনালদো।

“কোনো একজনের নাম উল্লেখ করা কঠিন …সেরা খেলোয়াড়রা সবসময় সেরা খেলোয়াড়দের অনুসরণ করে।”

“তারা সর্বোচ্চ পর্যায়ে যেতে চায়; কেননা, সেই জায়গায় অন্য কেউ আছে। আপনি বিশ্রাম নিতে পারেন না। কারণ, সেটা নিলে অন্যরা আপনাকে ছাড়িয়ে যেতে পারে।”

মেসিদের সঙ্গে সেরা লড়াইটা স্বাস্থ্যকর প্রতিযোগিতা বলেও মনে করেন পর্তুগালকে ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা এনে দেওয়া রোনালদো।

“অবশ্যই আমরা সবার সঙ্গে লড়াই করি। নেইমারের সঙ্গে, মেসির সঙ্গে, লেভানদোভস্কি, হিগুয়াইন…বিশ্বের সেরা খেলোয়াড়দের সঙ্গে। …এটা স্বাস্থ্যকর। আমরা সেরা হওয়ার জন্য লড়ি।”

“বছরের পর বছর তাদের চেয়ে ভালো হওয়ার জন্য এটাই আমার অনুপ্রেরণা।”

ক্যারিয়ারে ১৯টি বড় শিরোপা শিরোপা জেতা রোনালদো ফোর্বসের গত জুনে প্রকাশিত তালিকায় মেসি ও এনবিএ তারকা লেব্রন জেমসকে পেছনে ফেলে সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক পাওয়া খেলোয়াড় হয়েছেন।

অবশ্য ফুটবলের বাইরেও যে আরেকটা জীবন আছে, সেটাও সবসময় মনে রাখেন রোনালদো। পরিবার তার কাছে ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ।

“আমি ভালেন্সিয়ার মালিক পিটার লিমের সঙ্গে ছিলাম এবং তিনি আমাকে বলেছিলেন-ক্রিস্তিয়ানো, আমাদের অর্থ, খ্যাতি সব আছে। আমার কোটি কোটি টাকা আছে কিন্তু সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে পরিবার। তোমার পরিবারকে সুস্থ রাখো, তাদের খেয়াল রাখো।”

“তোমার ব্যাক্তিগত জীবন আছে, বান্ধবী আছে, গাড়ি-বাড়ি-খ্যাতি আছে। কিন্তু সবকিছুর শুরুতে, সুখে-দুখে তোমার পরিবার সবসময় তোমার সঙ্গে আছে।”