শেষ মুহূর্তের চরম নাটকীয়তায় ভারতকে ৯ রানে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ড

ইতিহাস গড়া হল না ভারতের মেয়েদের। মিতালি রাজকে শিরোপা জয়ের উল্লাসের মধ্য দিয়ে বিদায় দিতে পারল না তার সতীর্থরা। ২২৯ রানের ছোট টার্গেট তাড়া করতে নেমে ভারতের টপ অর্ডারের ব্যাটাররা শুরুটা ভালোই করেছিল। এক সময় মনে হচ্ছিল অনেক বল হাতে রেখেই প্রথম শিরোপাটা বগলদাবা করতে যাচ্ছে ভারত।

কিন্তু তৃতীয় উইকেটে ৯৫ রান তোলা পুনম রাউত ও হারমানপিত কাউরের ‍জুটিটা ভেঙে গেলে চাপে পড়ে যায় ভারত। ফাইনালের চাপে ভেঙে পড়া ভারত এরপর আর মাথা তুলে দাঁড়াতে পারেনি। শেষ পর্যন্ত অলআউট হয়েছে ২১৯ রানে। তাতে ভারতকে ৯ রানে হারিয়ে বিশ্বকাপের চতুর্থ শিরোপা ঘরে তুলেছে স্বাগতিক ইংল্যান্ড।

একটি আদর্শ ফাইনাল ম্যাচ হতে যা যা প্রয়োজন তার সবই ছিল এই ম্যাচে। কখনো এগিয়ে যাওয়া, কখনো পিছিয়ে পড়া। আবার সেখান থেকে এগিয়ে যাওয়া। ব্যাট-বলের ধুন্ধুমার লড়াই। কখনো ব্যাটসম্যানদের আধিপত্য। সেটাকে গুড়িয়ে দিয়ে বোলারদের আধিপত্য প্রতিষ্ঠা। জমজমাট এক ফাইনাল মঞ্চস্থ হল লর্ডসে।

সেখানে ইংল্যান্ডের ছুড়ে দেওয়া ২২৯ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে ইতিহাসটি গড়েই ফেলেছিল ভারতের মেয়েরা। কিন্তু ইংল্যান্ডের বোলার আনিয়া শ্রোবশোল একাই ছিনিয়ে নিলেন ভারতের প্রথম বিশ্বকাপ জয়ের স্বপ্ন। বল হাতে একাই গুড়িয়ে দিলেন ভারতের ব্যাটিং লাইন-আপ। ৯.৪ ওভার বল করে ৪৬ রান দিয়ে ছয়-ছয়টি উইকেট নিয়েছেন তিনি। ২টি উইকেট নিয়েছেন আলেক্স হার্টলি। বাকি দুটি উইকেট রান-আউটে কাটা পড়েছে। তাতে ভারতের প্রথম বিশ্বকাপের শিরোপা জয়ের স্বপ্নও লর্ডসের মেঘলা আকাশ হয়ে ওঠে। সেই মেঘ বৃষ্টির ন্যায় ঝড়ে পড়ে অধিনায়ক মিতালি রাজের নয়নে। কান্না লুকাতে পারেননি শেষবারের মতো বিশ্বকাপ খেলা মেয়েদের ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম সেরা এই প্রমীলা ক্রিকেটার।

ব্যাট হাতে ভারতের পুনম রাউত ৮৬ রান করেন। ১১৫ বলে ৪টি চার ও ১ ছক্কায় এই রান করেন তিনি। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৫১টি রান করেন হারমানপ্রিত কাউর। ভেদা কৃষ্ণমূর্তির ব্যাট থেকে আসে ৩৫টি রান। ১৭ রান আসে অধিনায়ক মিতালি রাজের ব্যাট থেকে।

তার আগে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে নাসলি সাইভারের ৫১, সারা টেইলরের ৪৫ ও ক্যাথেরিন ব্রান্টের ৩৪ রানে ভর করে ৫০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ২২৮ রান সংগ্রহ করে। বল হাতে ভারতের ঝুলান গোস্বামী ৩টি উইকেট নেন। ২টি উইকেট নেন পুনম যাদব।

ম্যাচসেরা ও সিরিজ সেরার পুরস্কার গিয়েছে ইংল্যান্ড দলে। ম্যাচসেরা নির্বাচিত হন ৬ উইকেট নেওয়া ইংল্যান্ডের আনিয়া শ্রোবশোল। আর সিরিজ সেরা হন এই টুর্নামেন্টে চার শতাধিক রান করা ইংল্যান্ডের টামি বায়মন্ড।