সেঞ্চুরির পথে মমিনুল; বড় লিডের আশা দেখাছে বাংলাদেশ

 

অবশেষে টেস্টে লিডের মুখ দেখছে বাংলাদেশ। টানা ইনিংস হারের মধ্যে থাকা বাংলাদেশ ৩ উইকেটে ২৪০ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষ করেছে৷ ফলে জিম্বাবুয়ে থেকে মাত্র ২৫ রানে পিছিয়ে থেকে তৃতীয় দিন ব্যাটিংয়ে নামবে বাংলাদেশ৷ সামনে হাতছানি দিচ্ছে বড় লিড নেয়ার সুযোগ। ৭ ইনিংস পরে ফিফটির দেখা পাওয়া মমিনুল অপরাজিত আছেন ৭৯ রানে। তার সামনে হাতছানি দিচ্ছে নবম টেস্ট শতক।

৬ উইকেটে ২২৮ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিনের খেলা শুরু করা জিম্বাবুয়ে দিনের শুরুতেই রাহী-তাইজুলের বোলিংতোপে মাত্র ৩৭ রান যোগ করতেই ২৬৫ রান আল আউট হয়ে যায়।

 

জবাবে ব্যাট করতে নেমে টেস্ট ব্যাটসম্যান হিসেবে বেশ নাম করে দলে আসা সাইফ পাকিস্তান সফরে ব্যর্থতার পর এবার ঘরের মাঠেও প্রথম ইনিংসে টিকতে পারলে না বেশিক্ষণ। ইনিংসের চতুর্থ ওভারের শেষ বলে নাউচিরতে পরাস্ত হয়ে উইকেটরক্ষক চাকাভার তালুবন্দি হয়েছেন তিনি। ফেরত যান ব্যক্তিগত ৮ রানে।

এরপর তামিম ইকবাল ও নাজমুল হাসান শান্তর ব্যাটে লাঞ্চ বিরতির আগের সময়টা কাটিয়ে দেয় বাংলাদেশ৷ লাঞ্চ বিরতি শেষে আক্রমণাত্মক খেলতে থাকেন দুই ব্যাটসম্যান। বিশেষ করে তামিম চার ওভারে হাকান পাঁচ বাউন্ডারি। দুজনে ইতিমধ্যেই যোগ করেছেন ৫৯ রান৷ তাদের ব্যাটেই এগিয়ে মধ্যাহ্ন বিরতিতে যায় বাংলাদেশ৷

মধ্যাহ্ন বিরতি থেকে ফিরে আক্রমণাত্নক খেলতে থাকেন দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান নাজমুল হাসান শান্ত ও তামিম ইকবাল। দুজনে মিলে গড়েন ৭৭ রানের জুটি৷ তবে নিজের অর্ধশতক মিস করেন তামিম৷ ৪২ রান করে ফিরে যান ডোনাল্ড টিরিপানোর বলে। তবে তামিম মিস করলেও অর্ধশতক মিস করেননি শান্ত৷ ৬ রানের সাহায্যে তুলে নেন টেস্ট ক্যারিয়ারের প্রথম অর্ধশতক৷ তামিম ফেরার পর মমিনুল ও শান্ত আরও ২৪ রান করে বাংলাদেশকে নিয়ে যান চা বিরতিতে। চা বিরতি থেকে ফিরে ৭১ রান করে শান্ত ফিরে গেলেও মমিনুল হক ও মুশফিকুর রহিম ৬৮ রান যোগ করে দিনের বাকি সময়টা পার করে দেন৷ মমিনুল তুলে নেন অর্ধশতক। আছেন সেঞ্চুরির পথে ৭৯ রানে অপরাজিত থেকে দিনশেষ করেন তিনি। অন্যদিকে মুশফিক অপরাজিত আছেন ৩২ রানে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

জিম্বাবুয়ে : ২৬৫/১০, আরভিন-১০৭, মাসভুরে ৬৪। নাইম- ৪/৭০, রাহি- ৪/৭১

বাংলাদেশ: ২৪০/৩,
মমিনুল-৭৯*, শান্ত-৭১, তামিম-৪২