এক,দুই,তিন,চার; মেসির চার গোলে বার্সা করলো ‘এইবার’ জয়

৩৯৮ মিনিট অথবা টানা চার ম্যাচের গোল খরা কাটিয়ে ফিরলেন লিওনেল মেসি৷ নামটা যখন ‘লিওনেল’ তখন ফেরাটাও করে রাখলেন স্বরণীয়। টানা চার ম্যাচের গোল খরা কাটাতেই কিনা মেসি করে ফেললেন চারটা গোল! মেসিময় রাতে এইবারের বিপক্ষে বার্সার জয় ৫-০ গোলের। অন্য গোলটি আর্থারের।

ইনজুরির কারনে ঘরের মাঠে এদিন দলে ছিলেন না লেফটব্যাক জর্দি আলবা। মাত্র তিনদিন পর চ্যাম্পিয়ন্স লীগের শেষ ষোলোর লড়াইয়ে নাপোলির বিপক্ষে মাঠে নামবে বার্সা। তাইতো কোচ কিকে বিশ্রাম দিয়েছেন সামুয়েল উমতিতি, সের্হিও রবের্তো, ফ্রেঙ্কি ডি ইয়ং ও আনসু ফাতিকে। মেসিময় রাতে কে আছেন,কে নেই সেই হিসেব যেন গৌণ।

ম্যাচের মাত্র চৌদ্দ মিনিটেই বার্সাকে এগিয়ে দেন আর্জেন্টাইন সুপারস্টার। মাঝমাঠে ইভান রাকিতিচের বাড়ানো বলে এইবার ডিফেন্ডারদের বোকা বানিয়ে ক্ষিপ্র গতিতে ডি-বক্সের ভেতরে ঢুকে ডান পায়ের শটে লক্ষ্যভেদ করেন মেসি। ৩৭ মিনিটে আবারও স্কোরশীটে নাম লেখান মেসি। এবার অ্যাসিস্ট আসে ভিদালের পা থেকে।

প্রথমার্ধ শেষ হওয়ার আগেই মেসি তুলে নেন চলতি মৌসুমে নিজের তৃতীয় হ্যাটট্রিক। ফরাসি ডিফেন্ডার গ্রিজম্যান বলের নিয়ন্ত্রণ রাখতে ব্যর্থ হলেও ভুলে বসেন এইবার ডিফেন্ডার। প্রতিপক্ষ ডিফেন্ডারের ভুলে বল পেয়ে এইবার দুর্গে হুল ফোটান মেসি।

ম্যাচের তিন মিনিট বাকি থাকতে ডান প্রান্ত থেকে ভিদালের পাস দারুণভাবে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে বাম প্রান্ত দিয়ে ঢুকে পড়েন ব্রাথওয়েট, করেন দুর্দান্ত ক্রস। বল গোলরক্ষকের হাতে লেগে চলে যায় মেসির সামনে। এক ডিফেন্ডার ও গোলরক্ষকে কাটিয়ে নিজের চতুর্থ ও এবারের লিগে আঠারোতম গোলটি করেন লিওনেল আর্দ্রেস মেসি।

মেসির চতুর্থ গোলের মিনিট দু’য়েক পর এইবার কফিনে শেষ পেরেক ঢুঁকেন আর্থার মেলো। ফলে চ্যাম্পিয়ন্স লীগ ম্যাচের আগে ৫-০ গোলের স্বস্তির জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে মেসিরা। বার্সার পরবর্তী লীগ ম্যাচ চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে, পহেলা মার্চ মাদ্রিদের মাঠ সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে।