শেষ বিকেলে সেঞ্চুরিয়ান আরভিনকে ফিরিয়ে প্রথম দিনটি নিজেদের করে নিল বাংলাদেশ

দিনের ৮৯তম ওভার যখন শুরু হয় তখনও মনে হচ্ছিল দুই দল মোটামুটি সম অবস্থানে থেকেই শেষ করতে যাচ্ছে ঢাকা টেস্টের প্রথম দিন। তবে দিনের ৮৯তম ওভারে জিম্বাবুয়ের অধিনায়ক সেঞ্চুরিয়ান ক্রেইগ আরভিনের উইকেট তুলে নিয়ে দিনটি নিজেদের দিকে নিল স্বাগতিক বাংলাদেশ।

টসে হেরে বোলিংয়ে নামা বাংলাদেশকে শুরুটা বেশ দারুণ এনে দেন পেসার আবু জায়েদ রাহী। শুরুতেই রান খুঁজতে থাকা জিম্বাবুয়ের ব্যাটসম্যানদের চাপে রাখেন ইবাদত-রাহী। তবে সাফল্যটা আসে একটু দেরিতে। ইনিংসের অষ্টম ওভারের শেষ বলে দারুণ এক সুইংয়ে চতুর্থ স্লিপে দাড়ানো নাইম হাসানের তালুবন্দি করে ওপেনার কাসুজাকে ব্যক্তিগত দুই রানে ফেরত পাঠান রাহী।

তবে এরপর দুর্দান্ত এক জুটি গড়েন ওপেনার মাসভুরে ও অধিনায়ক ক্রেইগ আরভিনের ১১১ রানের জুটিতে ম্যাচ দিকে নিয়ে যায় জিম্বাবুয়ে। তবে মাসভুরেকে ৬৪ রানে ফিরিয়ে বাংলাদেশকে ম্যাচে ফেরায় নাইম। এর কিছুক্ষণ অভিজ্ঞ ব্রেন্ডন টেইলরকেও ফিরিয়ে দেন নাইম তাতে স্বাগতিকদের চেপে ধরে টাইগাররা।

এরপর দ্রুত জিম্বাবুয়ের আরও ২ উইকেট তুলে নেন আবু জায়েদ রাহি ও নাইম হাসান৷ ফলে ২০০ রানের আগেই ৫ উইকেট হারিয়ে বসে সফরকারীরা। তবে একপাশ আগলে রেখে দুর্দান্ত এক শতক তুলে নেন ক্রেইগ আরভিন। ১৩ চারের সাহায্যে ২২৭ বলে ১০৭ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংস খেলে ফিরে যান তিনি। তার ব্যাটে ভর করেই দিনশেষে ৬ উইকেটে ২২৮ রান তোলে জিম্বাবুয়ে৷ তবে শেষ বিকেলে আরভিনের উইকেট তুকে নিয়ে দিনটি নিজেদের করে নেয় বাংলাদেশ।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

জিম্বাবুয়ে: ২২৮/৬। আরভিন- ১০৬, মাসভুরে- ৬৪।
নাইম- ৪/৬৮, রাহি- ২/৫১

বাংলাদেশ একাদশ: তামিম ইকবাল, সাইফ হাসান, নাজমুল হোসেন শান্ত, মুমিনুল হক (অধিনায়ক), মুশফিকুর রহিম, মোহাম্মদ মিঠুন, লিটন দাস (উইকেটরক্ষক), নাঈম হাসান, তাইজুল ইসলাম, আবু জায়েদ রাহী ও এবাদত হোসেন।

জিম্বাবুয়ে একাদশ: প্রিন্স মাসভাউরে, কেভিন কাসুজা, ক্রেইগ আরভিন (অধিনায়ক), ব্র্যান্ডন টেলর, টিমিসেন মারুমা, সিকান্দারা রাজা, রেগিস চাকাভা (উইকেটরক্ষক), ডোনাল্ড তিরিপানো, চার্লটন টিসুমা, এইন্সলে এনডিলোভু ও ভিক্টর নায়াউচি।