ডর্টমুন্ডের গোলমেশিন হ্যাল্যান্ডকে কেন দলে ভেড়ালো না বার্সেলোনা?

আরলিং ব্রাট হ্যাল্যান্ড; একটানা গোলের পর গোল করে পুরো ইউরোপের নজরে চলে এসেছেন ১৯ বছর বয়সী এই তারকা। লুইস সুয়ারেজের দীর্ঘমেয়াদী বিকল্প হিসেবে তাকে দলে ভেড়ানোর কথাও ভেবেছিলো কাতালান জায়ান্টরা।

চলতি মৌসুমের শুরু থেকেই রেডবুল সালজবুর্গের হয়ে পাদপ্রদীপের আলোয় আসেন হ্যাল্যান্ড। শুধু ঘরোয়া লীগেই নয়, ইউরোপ সেরার আসরেও সমানতালে গোল করে দলকে জিতিয়েছেন এই তারকা। তার ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সের উপর ভিত্তি করেই মূলত অন্য কিছু না ভেবে তাকে দলে ভিড়িয়েছিলো বরুসিয়া ডর্টমুন্ড। ডর্টমুন্ডের আস্থার প্রতিদানও ঠিকভাবেই দিচ্ছেন হ্যাল্যান্ড। সর্বশেষ ম্যাচে তার জোড়া গোলের উপর ভর করেই মূলত ঘরের মাঠ পিএসজিকে ঘায়েল করেছে হলুদ সাবমেরিনরা!

এবার আশা যাক আসল কথায়। কেন তাকে দলে ভেড়ালো না কাতালান জায়ান্টরা?

মোটামুটি অনেকগুলো কারন ভেবেই তাকে দলে ভেড়ানোর চেষ্টা করেনি বার্সেলোনা।

হ্যাল্যান্ডের ক্লাব সালজবুর্গের দাবিকৃত ২০ মিলিয়নের সাথে আরও অনেক পক্ষের আকাশচুম্বী কমিশন লাভের কথা মাথায় রেখেই মূলত এই ডিল থেকে সরে এসেছে বার্সেলোনা, রিয়াল মাদ্রিদ, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড এবং জুভেন্টাসের মতো পরাশক্তি।

হ্যাল্যান্ডকে দলে পেতে হলে সালজবুর্গের ২০ মিলিয়ন ট্রান্সফার ফির বাইরেও আরও অনেক খরচ করতে হতো বার্সাকে। তার বাবা আলফ ইগনে হ্যাল্যান্ডের চাওয়া ছিলো ৮ মিলিয়ন ইউরো। শুধু তার বাবাকে খুশি করলেই হতো না। হ্যাল্যান্ডের এজেন্ট মিনো রাইওলাকেও দিতে হতো ১৫ মিলিয়ন ইউরো! এছাড়া হ্যাল্যান্ডও কম যান না। বেতন বোনাসের বাইরেও মৌসুমে তাকে গুনতে হতো ৮ মিলিয়ন ইউরো।

আরও একটি শর্ত যোগ করে তাকে দলে ভিড়িয়েছে ডর্টমুন্ড। তার চুক্তিতে উল্লেখই আছে আগামী ২০২১ মৌসুম থেকে যেকোন আগ্রহী দলই তাকে ঠিক ৭৫ মিলিয়ন ইউরো দিয়ে দলে ভেড়াতে সক্ষম হবে।

আর বার্সাও চেয়েছিলো এমন একজনকে যে কিনা সুয়ারেজের অভাব পূরণে সক্ষম হবে। তাঁদের চাওয়া ছিলো এমন কাউকে যে কিনা শুধু বক্সের মধ্যেই নয়, বাইরেও সমান ভয়ঙ্কর হবে। কিন্ত হ্যাল্যান্ডকে তখন বার্সেলোনা ঠিক সেই মানের খেলোয়াড় হিসেবে বিবেচনা করেনি। বার্সার সিদ্ধান্তকে ভুল প্রমাণ করবেন কি হ্যাল্যান্ড? সে প্রশ্ন তোলা থাক না হয় সময়ের কাছেই!