‘ত্রিদেশীয় সিরিজ’ যাদের জন্য অগ্নিপরীক্ষা!

161
Photo: Collected

বাংলাদেশ, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও আয়ারল্যান্ডকে নিয়ে আজ শুরু হচ্ছে ত্রিদেশীয় ওয়ানডে সিরিজ। আর এই সিরিজ শেষেই শুরু হবে ইংল্যান্ডে বিশ্বকাপ। বাংলাদেশের জন্য এই টুর্নামেন্ট বিশ্বকাপের আগে বিরাট এক মহড়া।

বিশেষ করে বিশ্বকাপ দলে থাকা সদস্যদের চূড়ান্ত প্রস্তুতির সুযোগ এখানেই। আর দলের তরুণ ক্রিকেটারদের জন্য এই টুর্নামেন্ট পরীক্ষাও বলা যেতে পারে। সৌম্য সরকার, লিটন দাস, সাব্বির রহমান, মেহেদী হাসান মিরাজ, সাইফউদ্দিন ও আবু জায়েদ রাহীদের যোগ্যতা ও সক্ষমতার প্রমাণ রাখতেই হবে এখানেই। নয়তো ত্রিদেশীয় সিরিজে দলের সঙ্গে যোগ দেয়া তাসকিন, ইয়াসির আলী, ফরহাদ রেজা ও নাঈম হোসেন পরীক্ষায় পাশ করলে ঢুকে যাবেন বিশ্বকাপ দলে।

শুধু যে মাঠেই পরীক্ষা দিতে হবে তা নয় ফিটও থাকতে হবে শতভাগ।

সিরিজে আগামী ৭ই মে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ দল। যদি ফাইনালে ওঠে তাহলে খেলবে পাঁচ ম্যাচ। এখানে ১৯ সদস্যের দলকে ঘুরিয়ে ফিরিয়ে পরীক্ষা করবেন অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। তবে দেশ ছাড়ার আগে অধিনায়ক মাশরাফি বলে গেছেন সিরিজে প্রথম ম্যাচেই দেখা যাবে বিশ্বকাপ একাদশের মূল চিত্র। তাই প্রথম দিন থেকেই বিশ্বকাপ একাদশে থাকা তরুণদের কঠিন পরীক্ষা শুরু হচ্ছে তা বলার অপেক্ষ রাখে না।

আজ শুরু হতে যাওয়া এই টুর্নামেন্টে টাইগারদের বিশ্বকাপ স্কোয়াডের জন্য ভালো-মন্দ অনেক কিছুই অপেক্ষা করছে। দেশ ছাড়ার আগে অধিনায়ক মাশরাফিও জানিয়েছেন তরুণদের পরীক্ষার বিষয়টি।

তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহীম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, সাকিব আল হাসান ও অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজারা ত্রিদেশীয় সিরিজে খারাপ করলেও তাদের উপর আস্থা হারাবে না টিম ম্যানেজম্যান্ট। তাদের এখন আর প্রমাণ করার খুব একটা প্রয়োজন নেই। দলের জন্য যে কোনো সময় নিজেদের উজাড় করে দিতে পারেন এই পাঁচ সিনিয়র ক্রিকেটার। তবে ইনজুরি নিয়ে ভয় আছে এই পাঁচ জনের। বিশেষ করে অধিনায়ক মাশরাফিতো লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন ইনজুরি নিয়েই। ইনজুরি আক্রান্ত না হলে এই পাঁচ জনের বিশ্বকাপ দল থেকে বাদ পড়ার কোনো কারণ নেই।

অন্যদিকে ফর্মে না থাকা তরুণ সৌম্য, লিটন, মোসাদ্দেক হোসেন ও সাব্বিরকে এখানে বড় পরীক্ষাই দিতে হবে। দেশ ছাড়ার আগে ঢাকা প্রিমিয়ার লীগে এই তিন জনের পারফরম্যান্স আহামরি ছিল না। যদিও সৌম্য শেষ দুই ম্যাচে সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন। এর মধ্যে আছে রেকর্ড গড়া ডাবল সেঞ্চুরিও। এরপরও অধিনায়ক মাশরাফি মনে করে দুই একটি সেঞ্চুরিকে ফর্মে থাকা বলা যায় না।

এদিকে বিশেষ করে সৌম্যের ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলছেন আয়ারল্যান্ড সফরে থাকা তরুণ ইয়াসির আলী রাব্বি ও ফরহাদ রেজা।

এছাড়াও স্পিনার হিসেবে মেহেদী হাসান মিরাজের উপর ভরসা শতভাগ রাখা যায়। কিন্তু ইংলিশ কন্ডিশন বলে কথা। পেসারদের জন্যই কঠিন হয়ে যাবে। সেখানে স্পিনারদের জন্য আরো কঠিন হবে প্রতিপক্ষের ব্যাটসম্যানদের নিয়ন্ত্রণ করা। দেশ ছাড়ার আগে নিজের ফর্ম খুব একটা প্রমাণ করতে পারেননি মিরাজ।

তাই ত্রিদেশীয় সিরিজে সুযোগ পেলে তাকে কাজে লাগাতে হবে। নয়তো তার ঘাড়েও নিঃশ্বাস ফেলছেন তরুণ অফস্পিনার নাঈম হাসান।

পেসারদের মধ্যে সাইফউদ্দিন ও রাহীর জন্য আছে কঠিন চ্যালেঞ্জ। তাদের আয়ারল্যান্ড সিরিজে শুধু ভালো বল করলেই চলবে না শতভাগ ফিটও থাকতে হবে। যদি তাদের কেউ ইনজুরি বা ফর্মের কারণে ছিটকে পড়েন দল থেকে তাহলে বিকল্প হিসেবে আছেন আরেক পেসার তাসকিন আহমেদ।

যদিও তাসকিন নিজেও মাত্র ইনজুরি থেকে ফিরেছেন। ত্রিদেশীয় সিরিজে সুযোগ পেলে তাকেও নিজের সক্ষমতা প্রমাণ করতে হবে।