চ্যাম্পিয়নদের ২২৯ রানের বিশাল ব্যবধানে হারালো দক্ষিণ আফ্রিকা

ইংল্যান্ডের বোলারদের পিটিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা যে রানপাহাড় গড়ে, তারপর আসলে লড়াই করা কঠিনই ছিল জস বাটলারদের জন্য। তবে ৪০০ রানের বিশাল লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে এভাবে নাজেহাল হবে ইংলিশরা, সমর্থকরা নিশ্চয়ই সেটাও ভাবেননি।

তারা বর্তমান বিশ্বচ্যাম্পিয়ন। অন্ততপক্ষে লড়াইটা তো করতে পারতো। সেটাও হলো না! ইংল্যান্ডকে ২২৯ রানের বিশাল ব্যবধানে হারের লজ্জায় ডুবালো প্রোটিয়ারা। ৪ ম্যাচে এটি দক্ষিণ আফ্রিকার তৃতীয় জয়, অন্যদিকে সমান ম্যাচে তৃতীয় হার ইংলিশদের।

প্রোটিয়া বোলারদের তোপে রান তাড়ায় শুরুতেই বিপর্যয়ে পড়ে ইংল্যান্ড। ৩৮ রানে ৪টি আর ৮৪ রানে ৭ উইকেট হারানোর পর বড় পরাজয় নিশ্চিত হয়ে যায় ইংলিশদের। শেষ পর্যন্ত ২২ ওভারে তারা অলআউট হয়েছে ১৭০ রানে।

জনি বেয়ারস্টো (১০), ডেভিড মালান (৬), জো রুট (২), বেন স্টোকস (৫), হ্যারি ব্রুক (১৭), অধিনায়ক জস বাটলার (১৫)। ইংলিশ ব্যাটারদের কেউ দাঁড়াতেই পারেননি প্রোটিয়া বোলারদের সামনে।

শেষদিকে দুই পেসার গুস এটকিনসন (২১ বলে ৩৫) আর মার্ক উড (১৭ বলে ৪৩) লড়াই না করলে লজ্জাটা আরও বড় হতো ইংলিশদের।

দক্ষিণ আফ্রিকার গেরাল্ট কোয়েতজি ৩টি, লুঙ্গি এনগিদি আর মার্কো জানসেন নেন দুটি করে উইকেট।

এর আগে ৬১ বলে সেঞ্চুরি করেন দক্ষিণ আফ্রিকান ব্যাটার হেনরিখ ক্লাসেন। শুধু ক্লাসেনের কথা বলা কেন! দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটাররা যে যখন সেট হয়েছেন, ইংল্যান্ডের বোলারদের ওপর হয়েছেন চড়াও। সবমিলিয়ে ৫০ ওভারে দক্ষিণ আফ্রিকা পায় ৭ উইকেটে ৩৯৯ রানের বিশাল সংগ্রহ।

মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাটিংয়ে পাঠিয়েছিল ইংল্যান্ড। শুরুটা ভালোই ছিল তাদের। দলীয় ৪ রানের মাথায় প্রোটিয়া ওপেনার কুইন্টন ডি কককে (৪) সাজঘরে ফেরত পাঠান রিস টপলে।

তবে দ্বিতীয় উইকেটে ১১৬ বলে ১২১ রানের জুটি গড়েন রিজা হেনড্রিকস আর রসি ফন ডার ডাসেন। ৬১ বলে ৬০ করে আদিল রশিদের শিকার হন ডাসেন।

কিন্তু চালিয়ে খেলতে থাকেন রিজা হেনড্রিকস। অবশেষে মারকুটে এই ব্যাটারকে বোল্ড করে ফেরান আদিল রশিদ। ৭৫ বলে ৯ চার আর ৩ ছক্কায় রিজার ব্যাট থেকে আসে ৮৫ রান। এইডেন মার্করাম করেন ৪৪ বলে ৪২।

তবে দক্ষিণ আফ্রিকার পাহাড়সমান সংগ্রহ গড়ার পেছনে সবচেয়ে বড় অবদান ষষ্ঠ উইকেট জুটির। হেনরিখ ক্লাসেন আর মার্কো জানসেন মিলে ৭৭ বলেই তুলে দেন ১৫১ রান।

ইনিংসের ৫ বল বাকি থাকতে আউট হন ৬১ বলে বিধ্বংসী সেঞ্চুরি হাঁকানো ক্লাসেন। ৬৭ বলে ১০৯ রানের ইনিংসে ১২টি চার আর ৪টি ছক্কা হাঁকান তিনি।

তবে ইংলিশ বোলাররা থামাতে পারেননি মার্কো জানসেনকে। ৪২ বলে ৭৫ রানে অপরাজিত থাকেন এই অলরাউন্ডার। মারকুটে ইনিংসে ৩টি চারের সঙ্গে হাঁকান ৬টি ছক্কা!

বোলিংয়ে ইংল্যান্ডের রিস টপলে ৮৮ রানে নেন ৩টি উইকেট। ২টি করে উইকেট শিকার গুস এটকিনসন আর আদিল রশিদের।